ভুয়া সনদধারী ৭ চিকিৎসককে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৩৮ পিএম, ১৯ জানুয়ারি ২০২২
দুদকের হাতে গ্রেফতার ভুয়া সাত চিকিৎসক

দুদকের মামলায় গ্রেফতার ৭ ভুয়া চিকিৎসককে জেলগেটে একদিনের জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বুধবার (১৯ জানুয়ারি) তাদের আদালতে হাজির করা হয়। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তাদের তিন দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ তাদের রিমান্ড নামঞ্জুর করে জেলগেটে একদিনের জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেন।

তারা হলেন- মো. ইমান আলী (৪৭), সুদেব সেন (৫০), তন্ময় আহমেদ (৩৭), মোক্তার হোসেন (৪০), কাওছার (৩৫), রহমত আলী (৩৮) ও মোহাম্মদ মাসুদ পারভেজ (৪০)। রাজধানীর সেগুনবাগিচা এলাকায় অভিযান চালিয়ে আজ তাদের গ্রেফতার করে দুদক টিম।

২০২০ সালের ২ ডিসেম্বর দুদকের উপ-পরিচালক সেলিনা আখতার মনি বাদী হয়ে ১২ জন ভুয়া চিকিৎসকসহ মোট ১৪ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছিলেন। ওই মামলায় এর আগে এজাহারনামীয় মাহমুদুল হাসান নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তিনি এখন কারাবন্দি।

জানা যায়, কয়েক বছর আগে ১২ জন বাংলাদেশি ছাত্র চীনের তাইশান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিবিএস পাস করেছে বলে দাবি করেন। পরে তারা ওই সনদ ব্যবহার করে বিভিন্ন তারিখে বাংলাদেশে ইন্টার্নি অনুশীলন পরীক্ষায় অংশ নেন। পরে তারা বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের পরীক্ষায় অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছে দাবি করে দেশের বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্টার্ন হিসেবে কাজ করেন।

কিন্তু রেকর্ডপত্র যাচাই করে দেখা যায়, তাদের এমবিবিএস সনদগুলো ভুয়া। সনদগুলোর স্বাক্ষরের সত্যতা পরীক্ষার জন্য হস্তলেখা বিশারদদের মতামতও নেওয়া হয়। তাতেও দেখা যায়, সনদগুলোয় স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে।

ওই ১২ ভুয়া সনদধারী কখনো তাইশান মেডিকেলে পড়েননি। তারা টুরিস্ট ভিসায় চীনে গিয়েছিলেন বলে জানা যায়। এই ঘটনায় বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের রেজিস্ট্রার জাহিদুল হক বসুনিয়া ও প্রশাসনিক কর্মকর্তা বোরহান উদ্দিনসহ ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করা হয়।

জেএ/এআরএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]