‘সাংসদ’ নয়, সংসদ সদস্য লিখছে প্রথম আলো, রিট খারিজ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:১১ পিএম, ২২ মে ২০২২
ফাইল ছবি

দৈনিক প্রথম আলো সংসদ সদস্যদের (এমপি) নামের আগে ‘সাংসদ’ শব্দের পরিবর্তে সংসদ সদস্য শব্দ ব্যবহার করে আসছে, হাইকোর্টকে এমনটাই জানিয়েছেন পত্রিকাটির আইনজীবী।

আদালতে এমন তথ্য জানানোর পর রিটকারী আইনজীবী রিটের বিষয়ে চাওয়া আবেদনটি প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। ফলে রিটটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ করেছেন হাইকোর্ট।

রোববার (২২ মে) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির পল্লব।

আদালতে এদিন রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির পল্লব। সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার মোহাম্মদ কাওছার এবং ব্যারিস্টার মো. মাজেদুল কাদের। অন্যদিকে প্রথম আলোর পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার মো. মোস্তাফিজুর রহমান খান।

jagonews24বিবৃতি দিয়ে দুঃখপ্রকাশ করেছে পত্রিকাটি

ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির পল্লব জানান, দৈনিক প্রথম আলো সংসদ সদস্যদের (এমপি) নামের আগে ‘সাংসদ’ শব্দের পরিবর্তে তারা এখন সংসদ সদস্য শব্দ ব্যবহার শুরু করেছে। আর তারা সাংসদ শব্দ নিয়ে ভুল স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। আর ভুল স্বীকার করে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করেছেন। তাই তাদের প্রতি নির্দেশনা চেয়ে করা রিটটি প্রত্যাহার করো নিয়েছি। এরপর আদালত রিটটি উত্থাপিত হয়নি মর্মে খারিজ (নটপ্রেস রিজেক্ট) করেছেন। যেহেতু তারা ভুল স্বীকার করে এ বিষয়ে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তিও প্রকাশ করেছেন এবং হাইকোর্টকে এমন তথ্যও জানিয়েছেন প্রথম আলোর আইনজীবী। এরপর এই আদেশ দেন হাইকোর্ট।

এর আগে গত ১৮ মে শুনানিতে প্রথম আলোর আইনজীবী ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান আদালতে বলেন, প্রথম আলো এরই মধ্যে ‘সাংসদ’ শব্দের পরিবর্তে ‘সংসদ সদস্য’ শব্দ ব্যবহার শুরু করেছে। এখন থেকে তারা ‘সাংসদ’ শব্দের পরিবর্তে ‘সংসদ সদস্য’  ব্যবহার করবে।

গত ১৬ মে দৈনিক প্রথম আলোয় সংসদ সদস্যদের (এমপি) নামের আগে ‘সাংসদ’ শব্দ ব্যবহার নিষিদ্ধ এবং সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগে পত্রিকাটির সম্পাদক ও প্রকাশকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা চেয়ে রিট দায়ের করা হয়।

রিটে দৈনিক প্রথম আলোর সম্পাদক ও প্রকাশক, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সচিব, আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, সংসদ সচিবালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকসহ (ডিজি) সংশ্লিষ্ট ১০ জনকে বিবাদী করা হয়।

ওই দিন হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় ল’ অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশনের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির পল্লব, ব্যারিস্টার মোহাম্মদ কাওছার ও ব্যারিস্টার মো. মাজেদুল কাদের হাইকোর্টে এ রিট করেন।

এফএইচ/এসএইচএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]