শিশু ফাতেমাকে ৫ লাখ টাকা দিতে একমাস সময় চায় ট্রাস্টি বোর্ড

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৩৪ পিএম, ০৭ আগস্ট ২০২২

ময়মনসিংহে ট্রাকচাপায় মা-বাবা-বোন হারানোর সময় জন্ম নেওয়া নবজাতকের জন্য ৫ লাখ টাকা দিতে ১৫ দিন সময়ের পরিবর্তে এক মাস সময় চেয়েছেন ট্রাস্টি বোর্ড। বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ মাহাসিব হোসেন।

রোববার (৭ আগস্ট) হাইকোর্টের বিচারপতি খিজির আহেমেদ চৌধুরী ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আজ রিটের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ মাহাসিব হোসেন। আর বিআরটিএর ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহ্ মুনজুরুল হক। তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী মো. রাফিউল ইসলাম।

সৈয়দ মাহাসিব হোসেন বলেন, ময়মনসিংহে ট্রাকচাপায় মা-বাবা-বোন হারানোর সময় জন্ম নেওয়া নবজাতকের জন্য ৫ লাখ টাকা দিতে ১৫ দিন সময় দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

তারা এই সময়ের মধ্যে টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করে আরও একমাস সময় চেয়েছেন ট্রাস্টি বোর্ড। তাই ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানের পক্ষের সময় আবেদন গ্রহণ করেছেন আদালত। এর পরে আদালত আগামী এক মাস পর টাকা পরিশোধ করতে এবং মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, সমাজকল্যাণ সচিবকে তিন মাসের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করার জন্যে আদেশ দিয়েছে। আর এক মাস পর এ বিষয়ে আবারও শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে হাইকোর্টের আদেশ সংশোধন চেয়ে আবেদন করেছিল ট্রাস্টি বোর্ড। এ বিষয়ে রোববার (৭ আগস্ট) শুনানির দিন ঠিক করেছিলেন আদালত। তারই ধারাবাহিকতায় আজ সেটি শুনানি হয়।

এর আগে গত ১৯ জুলাই এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট ময়মনসিংহের ওই নবজাতকের আইনগত অভিভাবককে ১৫ দিনের মধ্যে ৫ লাখ টাকা দিতে নির্দেশ দেন। সড়ক পরিবহন আইনের ৫৪ ধারা অনুসারে গঠিত ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানের প্রতি এ নির্দেশ দেওয়া হয়।

আদেশ সংশোধন চেয়ে ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানের পক্ষে হাইকোর্টে আবেদন করা হয়। ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যানের আইনজীবী মো. রাফিউল ইসলাম বলেন, ‘আবেদনে অর্থ বরাদ্দ সাপেক্ষে ৫ লাখ টাকা দিতে ১৫ দিনের পরিবর্তে অর্থ বরাদ্দ পর্যন্ত সময় চাওয়া হয়েছে। আজ আবেদনটি শুনানির জন্য কার্যতালিকায় ছিল। এর পরে এ বিষয়ে শুনানির জন্যে আগামী রোববার দিন ঠিক করেন।’

১৬ জুলাই ময়মনসিংহের ত্রিশালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক পারাপারের সময় ট্রাকচাপায় এক দম্পতি ও তাদের ছয় বছরের মেয়ে নিহত হয়। মৃত্যুর আগমুহূর্তে অন্তঃসত্ত্বা মা সড়কে মেয়েসন্তান জন্ম দেন। শিশুটির নাম রাখা হয় ফাতেমা। শিশুটিকে গত সপ্তাহে রাজধানীর আজিমপুরে অবস্থিত ছোটমণি নিবাসে আনা হয়। ময়মনসিংহের সড়কে জন্ম নেওয়া শিশু ফাতেমা এখন রাজধানীর আজিমপুরের ছোটমণি নিবাসে রয়েছে।

নবজাতককে পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ ও তার কল্যাণ নিশ্চিতে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা চেয়ে ১৮ জুলাই আইনজীবী কানিজ ফাতিমা তুনাজ্জিনা হাইকোর্টে রিট করেন। রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে পরদিন হাইকোর্ট রুলসহ আদেশ দেন।

ঘোষিত আদেশে আদালত বলেন, নবজাতকের চিকিৎসা চালিয়ে যেতে হবে। একই সঙ্গে নবজাতকের দেখভাল ও তদারকির জন্য একটি কমিটি গঠন করতে সমাজকল্যাণ সচিবকে নির্দেশ দেওয়া হলো। নবজাতকের কল্যাণে নেওয়া পদক্ষেপ জানিয়ে তিন মাসের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়।

রুলে নবজাতকের আইনগত অভিভাবককে পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ দিতে ট্রাস্টি বোর্ডকে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়।

মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, সমাজকল্যাণ সচিব, সড়ক পরিবহন সচিব, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি, সড়ক পরিবহন আইনের ৫৪ ধারায় গঠিত ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও ট্রাকমালিককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

এফএইচ/জেএস/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।