বঙ্গবন্ধু হত্যা: দোষীদের খোঁজার নির্দেশনার রিট শুনানি মুলতবি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৩৬ পিএম, ১৬ আগস্ট ২০২২
ফাইল ছবি

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবার অন্যান্য সদস্য হত্যার ঘটনায় নেপথ্যে কারা জড়িত, তাদের খুঁজে বের করার নির্দেশনা চেয়ে করা রিট আবেদন শুনানি দুই মাসের জন্য মুলতবি (স্ট্যান্ডওভার) করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) হাইকোর্টের বিচারপতি একেএম কামরুল কাদের ও বিচারপতি মুহাম্মাদ আলীর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন। জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রিটকারী আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস নিজে বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।

আদালতে আজ রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুল আলিম জুয়েল।

এর আগেও হাইকোর্টের আরেকটি বেঞ্চে শুনানি করে রিটটি মুলতবি করা হয়েছিল।

গত বছরের ২৫ অক্টোবর হাইকোর্টে এ রিট আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস। রিটে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতার স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবার অন্যান্য সদস্য হত্যার ঘটনায় নেপথ্যে কারা জড়িত, তাদের খুঁজে বের করার নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

রিটে জাতির জনকের নির্মম হত্যাকাণ্ডের ষড়যন্ত্র এবং তৎপরবর্তী পদক্ষেপসমূহ সম্পূর্ণ পর্যালোচনা ও নিরীক্ষার লক্ষ্যে একটি স্বাধীন জাতীয় কমিশন গঠনের আর্জি জানানো হয়।

ওই সময় সুবীর নন্দী দাস জানান, (পিটিশনার) সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সুবীর নন্দী দাসের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের অন্য আইনজীবী মো. আসফাকোজ্জোহা রিটটি করেন। রিটে কেবিনেট বিভাগের সচিব, আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সচিব এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের সচিবকে বিবাদী করা হয়েছে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রনায়কদের হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে তদন্ত কমিশন গঠনের নজির রয়েছে বলে এ আইনজীবী উল্লেখ করেন।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট আইনে বিভিন্ন দেশের আদালতে প্রকাশিত রায়ের আলোকে ১৯৮২ সালে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্যদের মাধ্যমে গঠিত বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের তদন্ত কমিশনের প্রাথমিক প্রতিবেদনের ভিত্তিতেও কমিশন গঠনের সুযোগ রয়েছে।

এফএইচ/আরএডি/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।