নোয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচন

টিটুর প্রার্থিতা নিয়ে হাইকোর্টের আদেশ চেম্বারে বহাল

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:০৩ পিএম, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২

নোয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আলাবক্স তাহের টিটুর মনোনয়নপত্র বাতিল করে হাইকোর্টের দেওয়া স্থগিতাদেশের বিষয়ে ‘নো অর্ডার’ দিয়েছেন চেম্বারজজ আদালত।

রাষ্ট্রপক্ষের করা আপিল আবেদনের শুনানি নিয়ে সোমবার (২৬ সেপ্টেম্বর) চেম্বার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম এ আদেশ দেন। ফলে টিটুর প্রার্থিতা নিয়ে হাইকোর্টের আদেশ বহাল থাকলো।

টিটুর পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিন আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেলের দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এস এম মুনিরুজ্জামনা মুনীর। টিটুর পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল।

এর আগে টিটুর করা রিটের শুনানি নিয়ে রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি এস এম মনিরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ নোয়াখালী জেলা পরিষদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আলাবক্স তাহের টিটুর মনোনয়নপত্র বাতিল করে রিটার্নিং অফিসার ও অ্যাপিলেট অথরিটির দেওয়া আদেশের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়ে রুলও জারি করেন।

ঋণ খেলাপির অভিযোগে গত ১৮ সেপ্টেম্বর স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আলাবক্স তাহের টিটুর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন নোয়াখালী জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা। পরে এ আদেশের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে আপিল করেন টিটু। সে আবেদন খারিজ হলে হাইকোর্টে রিট করেন তিনি। ওই রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট মনোনয়ন বাতিল আদেশ স্থগিত করে মনোনয়নপত্র গ্রহণ করে প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দ দিতে নির্দেশ দেন।

হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল আবেদন করলে চেম্বার বিচারপতির আদালত তাতে ‘নো অর্ডার’ আদেশ দেন। ফলে টিুটুর প্রার্থিতা বৈধ বলে হাইকোর্টের নির্দেশ বহাল থাকলো।

এতে ঋণখেলাপির অভিযোগে বাতিল হওয়া আলাবক্স তাহের টিটুর মনোনয়নপত্র বৈধ হয়েছে। এই আদেশের ফলে তিনি জেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন টিটুর আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল।

একই সঙ্গে টিটুর মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ ও বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

আদালতে ওইদিন আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন টিটুর আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. রুহুল কুদ্দুস কাজল। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট মো. আকতার রসুল, অ্যাডভোকেট মো. মোসাদ্দেক বিল্লাহ, অ্যাডভোকেট আবদুল্লাহিল মারুফ ফাহিম, অ্যাডভোকেট নুরে আলম সিদ্দিকী ও অ্যাডভোকেট নাজিয়া জাহান চৌধুরী।

অ্যাডভোকেট মো. আকতার রসুল জানান, গত ১৮ সেপ্টেম্বর ঋণখেলাপির অভিযোগে নোয়াখালী জেলা পরিষদের নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যানপ্রার্থী আলাবক্স তাহের টিটুর মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক দেওয়ান মাহবুবুর রহমান। এছাড়া সাধারণ সদস্য প্রার্থী পাঁচজন ও সংরক্ষিত সদস্য পদে দুজন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

ওই ঘটনায় জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মেসবাহ উদ্দিন জানান, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকে চেয়ারম্যান প্রার্থী আলাবক্স তাহের টিটুর খেলাপি ঋণ থাকায় তার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়।

পরে মনোনয়নপত্র বাতিল আদেশের বিরুদ্ধে চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে আপিল করেন আলাবক্স তাহের টিটু। সেখানেও মনোনয়নপত্র বাতিলের সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়। এই আদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করেন আলাবক্স তাহের টিটু। ওই রিটের শুনানি নিয়ে এই আদেশ দেন আদালত।

আগামী ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে জেলা পরিষদ নির্বাচন। জেলায় মোট ভোটার সংখ্যা এক হাজার ৩০৬ জন। যার মধ্যে পুরুষ ৯৯৮, আর নারী ভোটার রয়েছেন ৩০৮ জন। ভোটকেন্দ্র ৯টি।

এফএইচ/এমকেআর/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।