আবার হাঁটতে চাই

সাহিত্য ডেস্ক সাহিত্য ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:৫৩ পিএম, ১৪ মে ২০২০

জামিরুল জাহিদ

চীনের গ্রেট ওয়াল চৈত্রের দুপুরে খাঁ খাঁ করছে
পথচারীরা প্যামফ্লেটের মতো লেপ্টে আছে বাড়ির পরিখায়
বুক শেল্ফগুলো থেকে সরেছে ধুলোর জঞ্জাল
কবিতারা ফিরে এলো পরিযায়ীর ডানায়
বনফুলগুলো ঘিরে ভিড়েছে বিবাগী বাতাস
একাকী হ্যামিলিয়ন বাজিয়ে চলেছে বান্দিশ
‘কি জানি কিসের লাগি প্রাণ করে হায় হায়!’
মায়ামি বিচে উদ্বেলিত ঢেউয়েরা পরেছে বিকিনি
শিহরণ জেগেছে তার লাল কাঁকড়ার কামড়ে
কক্সবাজারে জেগেছে ডলফিন শুভ্র সাঁতারে
সঙ্গমে সম্ভোগে মিশেছে সায়াহ্নের শঙ্খচিল
একি তাহলে সেই ইউটোপিয়া, সেই মাহেন্দ্রক্ষণ?
কতযুগ ধরে চলেছে হিমাদ্রিতুল্য পচন
কতপথ কতদ্রুত গেলে তাকে বলা হবে র্যাট রেস
দৌড়াতে দৌড়াতে হারিয়ে ফেলেছি সোনালি রোদ
ইস্টিকুটুম, পেলব জোৎস্না, চিরহরিৎ বৃক্ষপল্লব
সোঁদা মাটির ঘ্রাণ, হাজার নক্ষত্রের রাত, মায়ের মুখ
এবার কি তাহলে বলতে হবে ‘ধরণী দ্বিধা হও!’
কে তৈরি করেছে আজ আজন্ম লালিত পৃথিবীর ঘ্রাণ?
আমারই হন্তারক যখন আমি নিজেই!
অরণ্য কি আমাকে আর নেবে কিংবা দূর্বাঘাস
মৃত্যুর মোহনায় মৌমাছিদের ভন ভন আওয়াজ
ঝরা শিউলীর বুননে বন্য এক অর্কেস্ত্রা
জনারণ্যে একটি পাখি একাকী উড়ে যায় ভোকাট্টা
হাতড়ে মরি ফেলে আসা অতীত, বিষন্ন বিকেল
তবুও ঘুরে দাঁড়াতে চাই বাইসনের মত রুদ্ররাগে
হাঁটতে চাই তোমার সোনালি ভোরের আমন্ত্রণে
তুমি নেবে কি আমায় তোমার সীমাহীন প্রান্তরে?
তোমারি পদচিহ্নে হাঁটবো আবার নিশ্চিন্তে নিভৃতে

এইচএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]