বই নিয়ে বই

সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা
সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা , প্রধান সম্পাদক, জিটিভি
প্রকাশিত: ০১:৪৪ পিএম, ০৩ অক্টোবর ২০২০

লেখক ও প্রকাশক কামরুল হাসান শায়কের বই পুস্তক উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনা পড়লাম সম্প্রতি। এই ডিজিটাল যুগে সবকিছু যখন ইন্টারনেটে পড়ার বিশাল সুযোগ, তখন শায়ক এই বইটি লিখেছেন তাদের জন্য যারা প্রকাশনার বিষয় নিয়ে একাডেমিক পড়ালেখা করছেন বা পড়াচ্ছেন এবং যারা এই শিল্পের সাথে জড়িয়ে আছেন। কামরুল হাসান শায়ক তিরিশ বছরেরও বেশি সময় ধরে প্রকাশনা জগতে আছেন এবং গড়ে তুলেছেন দেশের শীর্ষ প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান পাঞ্জেরী।

সাহিত্য-সংস্কৃতি, বই পড়ার ঐতিহ্য এবং বুদ্ধিবৃত্তির চর্চায় যাদের আগ্রহ আছে তারা বইটি পড়তে পারেন। তবে আমার কাছে মনে হয়েছে এই বই প্রকাশনার শিক্ষার্থী এবং প্রকাশনা জগতের কর্মীদের জন্য অবশ্য পাঠ্য। খুব কম বয়েস থেকে শিশুদের বই পড়ার অভ্যেস তৈরি করা জরুরি, সেটা আমরা জানি। কিন্তু এখনকার শিশু, এখনকার তারুন্য কেমন বই চায় সেটি বুঝতে পারাও জরুরি। যেকোন বিষয়ের বই যদি দেখতে সুন্দর হয়, ছাপার অক্ষরগুলো ঝকঝকে হয়, এর মলাট ও বাঁধাই যদি ভাল হয় তাহলে পড়ার আগ্রহ আরও বেড়ে যায়।

তিন অধ্যায়ে রচিত বইটিতে পুম্তক উৎপাদন ব্যবস্থাপনা, বই উৎপাদন করতে গেলে তার আগে ও পরের ধাপগুলো বিস্তৃতভাবে বলা হয়েছে অক্ষরের সাথে রঙ্গিন ছবি ব্যবহার করে।

নিজের কর্মজীবন, দেশে বিদেশের বই মেলা ও প্রকাশনা সংশ্লিষ্ট সম্মেলনে অংশ গ্রগণ করে সঞ্চিত অভিজ্ঞতা থেকে গবেষণা ধর্মী এই বইটি লিখেছন শায়ক। গবেষণার মত করে লেখা হলেও বইয়ের ভাষা সাবলিল। একাডেমিক বই যেমন হয়, এই বইটিও তাই। প্রকাশনা ব্যবস্থাপনার তাত্ত্বিক ও প্রায়োগিক উপস্থাপনা হয়েছে বিস্তারিতভাবে। যারা বই প্রকাশনাকে ক্যারিয়ার হিসেবে নিতে চান, যারা এই পেশায় কর্মী হিসেবে আছেন তাদের জন্য তারা আধুনিক বই উৎপাদন ব্যবস্থাপনার সব দিকনির্দেশনা পাবেন এই বইয়ে।

কেন এই বই? লেখক বলছেন, “আমার প্রকাশনা শিল্পে তিন দশকের অভিজ্ঞতায় দেখেছি অনেক প্রকাশক প্রকাশনা ব্যবসায় করতে এসে শুধু সঠিক ব্যবস্থাপনার অভাবে ছিটকে পড়ছেন।” এ কথার মাধ্যমে শায়ক তার প্রকাশনা জগতের সহকর্মীদের জীবনকে উপলব্ধি করেছেন, তাদের ব্যবসা কি করে প্রাতিষ্ঠানিক হবে সেটা বলবার জন্য সচেষ্ট হয়েছেন। যারা প্রকাশনা শিল্পকে আগামী অনেক বছর পরেও সচল দেখতে চান, সেইসব প্রকাশকদের জন্য, ভবিষ্যতের প্রকাশনী উদ্যোক্তা ও কর্মীদের জন্য এই বই সহায়ক।

উৎপাদন ব্যবস্থাপনা কী? কেমন করে পুরো প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হয়, কতটি বিভাগের মাধ্যমে একটি প্রতিষ্ঠানকে সাজাতে হয়, সেই সব বিভাগের কাজ কী? বিভিন্ন বিভাগের মধ্যকার প্রতিষ্ঠানে সম্পর্ক ও রসায়ন কী– সবই আছে লেখায়। একটি প্রকাশনা শিল্পের সাথে জড়িত থাকে বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার, উপকরণ সাপ্লায়ার থেকে বিপননের নানা স্তর। সবার কথা আছে বইটিতে এবং শেষ পর্যন্ত পাঠকের হাতে কি করে পৌঁছে যায় একটি বই, সবটুকু জানা যায় শায়কের লেখায়। বই প্রকাশের জন্য কিভাবে পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হয়, পরিকল্পনায় বইয়ের মান, ধরনসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় বিষয়ে কিভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হয়, কিভাবে বইয়ের সহযোগিতা করবে, এমন তথ্যও উপস্থাপন দাম ঠিক করা হয়– সবই আছে এতে।

আমরা বই পড়ি চোখ দিয়ে, বইয়ের কনটেন্ট কাজ করে মগজে। সেই বই কীভাবে মুদ্রণ ও বাঁধাইয়ের কাজ সম্পন্ন হয় তা আমাদের বর্তমান প্রযুক্তিগত অবস্থান এবং ক্রমদক্ষতার পরিপ্রেক্ষিতে বুঝা দুস্কর। দুস্কর কাজটি পাঠকের জন্য সহজ করেছেন লেখক।

প্রতি বছর অমর একুশে বইমেলায় হাজার হাজার বই আসে। কনটেন্টের দুর্বলতা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়, কিন্তু এসব বইয়ের প্রকাশনার মান নিয়ে তেমন আলোচনা হয়না। একটি পাণ্ডুলিপিকে পাঠকের উপযোগী করে গড়ে তোলার জন্য জানা প্রয়োজন এর আধুনিক উৎপাদন ব্যবস্থাপনা কৌশল। হাতের কাছে চাইলেই উন্নত প্রযুক্তিতে প্রকাশিত বিদেশি বই। তাই বইয়ের উন্নয়ন, বইয়ের প্রসার ও পাঠক বাড়াতে হলে উৎপাদিত বইকে আন্তর্জাতিক মানের হতেই হবে।

বই ব্যবসা করতে যারা এসেছেন, পুস্তকের গুণগত মান বাড়ানোর দিকে তাদের নজর দিতেই হবে। ভাল উন্নত প্রকাশনা, ভাল সম্পাদিত বই করার তাগিদ অনুভব করুক সবাই।

বইয়ের নাম: পুস্তক উৎপাদন ব্যবস্থাপনা

লেখক: কামরুল হাসান শায়ক

প্রচ্ছদ: রাজিব রাজু

প্রকাশক: পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স লিমিটেড

মূল্য: ৮৭৫ টাকা।

এইচআর/এমএস

‘আমরা বই পড়ি চোখ দিয়ে, বইয়ের কনটেন্ট কাজ করে মগজে। সেই বই কীভাবে মুদ্রণ ও বাঁধাইয়ের কাজ সম্পন্ন হয় তা আমাদের বর্তমান প্রযুক্তিগত অবস্থান এবং ক্রমদক্ষতার পরিপ্রেক্ষিতে বুঝা দুস্কর। দুস্কর কাজটি পাঠকের জন্য সহজ করেছেন লেখক।’

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]