EN
  1. Home/
  2. ক্যাম্পাস

মুমূর্ষু রোগীদের পাশে ছাত্রলীগের ‘জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা’

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ০১:৫০ পিএম, ০২ নভেম্বর ২০২০

দেশে করোনার সংক্রমণ শুরু হয় মার্চ মাসে। জুন, জুলাইয়ের দিকে এটি প্রকট আকার ধারণ করলে বাজার থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার উধাও হয়ে যায়। নির্ধারিত মূল্য থেকে কয়েকগুণ বেশি দামেও অক্সিজেন সেবা পাওয়া নিয়ে কপালে ভাঁজ পড়তো রোগী ও স্বজনদের।

ঠিক এই সময়ই মুমূর্ষু রোগীদের সেবায় বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা নিয়ে আসেন ছাত্রলীগের তিন নেতা। তারা এ সেবাটির নাম দেন ‘জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা’।

সেবাটি ২৫ জুন থেকে ঢাকায় চালু হলেও পর্যায়ক্রমে চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ বিভাগীয় শহর এবং ফেনী জেলা শহরে এ সেবা চালু হয়। এসব জায়গায় অক্সিজেনের জন্য ফোন করলে স্বেচ্ছাসেবকরা বাসায় অক্সিজেন পৌঁছিয়ে দেন। এছাড়া কুরিয়ারের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে মুমূর্ষু রোগীদের জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডার পাঠিয়ে থাকেন তারা।

বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা দেয়ার প্রথম উদ্যোগ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক এবং ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী। তার সঙ্গে এগিয়ে আসেন ছাত্রলীগের উপ-বিজ্ঞান বিষয়ক সম্পাদক সবুর খান কলিন্স এবং ডাকসুর সাবেক সদস্য ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সবুজ।

jagonews24

তাদের এই উদ্যোগের সঙ্গে কাজ করছেন ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ২০ জনের বেশি স্বেচ্ছাসেবক।

‘বিনামূল্যে জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা’ প্রোগ্রামের উদ্যোক্তা সাদ বিন কাদের চৌধুরী জাগো নিউজকে বলেন, “করোনাভাইরাস শুরু হওয়ার পর থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন। সে নির্দেশনা পালনের অংশ হিসেবে একটি নতুন ভোরের প্রতীক্ষায় আমরা ‘জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা’ চালু করি। আমাদের দীপ্ত অঙ্গীকার ছিল-যতদিন করোনা থাকবে আমরা ততদিন মানুষের পাশে এই সেবাটি নিয়ে থাকব। করোনা শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা আমাদের এই সেবা অব্যাহত রাখব।”

তিনি বলেন, ‘আমরা এখন পর্যন্ত দুই হাজারের অধিক রোগীকে (কোভিড, নন-কোভিড) এই সেবা দিয়েছি। চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন দেখিয়ে যে কেউ আমাদের সেবাটি নিতে পারেন। সেবাটি সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে বিভাগীয় পর্যায়ে আমরা সেবাটি চালু করতে যাচ্ছি।’

রাজধানীর বাসাবোতে অক্সিজেন সেবাভোগী এক রোগীর স্বজন জাগো নিউজকে বলেন, “আমার নানু আজ (৩১ অক্টোবর) সন্ধ্যার পরে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। তার অক্সিজেন সেচ্যুরেশন ৯০/৯২-এ নেমে আসে। তার অবস্থা খারাপ দেখে আমরা ডাক্তারকে ফোন দিলে ডাক্তার অক্সিজেন নিতে বলেন। তখন আমরা আশপাশে কোথাও অক্সিজেন সিলিন্ডার না পেয়ে ‘জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা’কে ফোন দিই। তারা এক ঘণ্টার মধ্যে আমাদের কাছে অক্সিজেন নিয়ে আসে।”

আল-সাদী ভূঁইয়া/এসআর/পিআর