ভিডিও EN
  1. Home/
  2. অর্থনীতি

বিনিয়োগকারীদের পছন্দের শীর্ষে কে অ্যান্ড কিউ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ০৪:৩০ পিএম, ১৯ আগস্ট ২০২২

গেলো সপ্তাহ কিছুটা ঊর্ধ্বমুখীতার মধ্য দিয়ে পার করেছে দেশের শেয়ারবাজার। এই ঊর্ধ্বমুখী বাজারে সপ্তাহজুড়েই দাম বাড়ার ক্ষেত্রে দাপট দেখিয়েছে কে অ্যান্ড কিউ। এই কোম্পানিটির শেয়ার এক শ্রেণির বিনিয়োগকারীদের পছন্দের শীর্ষে থাকায় সপ্তাহজুড়েই দাম বেড়েছে। ফলে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দাম বাড়ার শীর্ষ স্থানটি দখল করেছে কোম্পানিটি।

গত সপ্তাহে কে অ্যান্ড কিউর শেয়ার দাম বেড়েছে ২১ দশমিক ৩১ শতাংশ। টাকার অঙ্কে বেড়েছে ৫৩ টাকা ১০ পয়সা। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস শেষে কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ারের দাম দাঁড়িয়েছে ৩০২ টাকা ৩০ পয়সা, যা আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ২৪৯ টাকা ২০ পয়সা।

শেয়ারের এমন দাম বাড়া কোম্পানিটি সর্বশেষ ২০২১-২২ হিসাব বছরের প্রথম নয় মাসের (২০২১ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত) আর্থিক অবস্থার ভিত্তিতে ৫ শতাংশ নগদ অন্তর্বর্তী লভ্যাংশ ঘোষণা করেছ। এর আগে ২০২১ সালের ৩০ জুন সমাপ্ত বছরে কোম্পানিটি ৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ দেয়। তার আগে ২০২০ সালে বিনিয়োগকারীদের ৪ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় কোম্পানিটি। এছাড়া ২০১৯ সালে সাড়ে ৭ শতাংশ এবং ২০১৮ সালে ৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় কোম্পানিটি।

সর্বশেষ প্রকাশিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোম্পানিটি ২০২১ সালের জুলাই থেকে চলতি বছরের মার্চ পর্যন্ত নয় মাসের ব্যবসায় শেয়ারপ্রতি ৬৯ পয়সা মুনাফা করেছে। আগের হিসাব বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয় ৬০ পয়সা।

এদিকে দাম বাড়ায় বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ তাদের কাছে থাকা কোম্পানিটির শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন। ফলে সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১০ কোটি ৭৮ লাখ ২১ হাজার টাকা। আর প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৩ কোটি ৫৯ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

মাত্র ৫ কোটি ১৪ লাখ টাকা পরিশোধিত মূলধনের এই কোম্পানিটির মোট শেয়ার সংখ্যা ৫১ লাখ ৪৭ হাজার ৬৫৭টি। এর মধ্যে ৩১ দশমিক ৭৭ শতাংশ শেয়ার আছে উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের হাতে। বাকি শেয়ারের মধ্যে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে আছে ৬০ দশমিক ১৯ শতাংশ। আর ৮ দশমিক শূন্য ৪ শতাংশ আছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে।

গেলো সপ্তাহে দাম বাড়ার শীর্ষ তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা সোনারগাঁও টেক্সটাইলের শেয়ার দাম বেড়েছে ১৯ দশমিক ৩৮ শতাংশ। ১৫ দশমিক ৮৩ শতাংশ দাম বাড়ার মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে বাংলাদেশ মনোস্পুল পেপার প্রসেসিং।

এছাড়া দাম বাড়ার শীর্ষ দশে স্থান করে নেওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে পেপার প্রসেসিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ের ১৫ দশমিক ৪৭ শতাংশ, ইউনিয়ন ক্যাপিটালের ১৫ দশমিক ৩৮ শতাংশ, সমরিতা হাসপিটালের ১১ দশমিক ৮১ শতাংশ, ওরিয়ন ইনফিউশনের ১১ দশমিক ৭২ শতাংশ, সাফকো স্পিনিংয়ের ১১ দশমিক ৬৬ শতাংশ, আনলিমা ইয়াং ডাইংয়ের ১১ দশমিক ৫৯ শতাংশ এবং সানলাইফ ইন্স্যুরেন্সের ১১ দশমিক ৫৬ শতাংশ দাম বেড়েছে।

এমএএস/আরএডি/এএসএম