EN
  1. Home/
  2. জাতীয়

হোটেল ব্যবসার নামে ৪ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ০৬:০১ পিএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

হোটেল ব্যবসায় বিনিয়োগের নামে চার কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ তুলে ইতালি প্রবাসী মোহাম্মদ লিটনের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী পাঁচ পরিবার।

তাদের দাবি, ২০ বছর আগে ইতালির ভিসেন্সা শহরে পরিচয় হয় ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার মোহাম্মদ লিটনের সঙ্গে। সেই সূত্রে ২০১৫ সালে ইতালির রাজধানী রোমে হোটেল ব্যবসায় যৌথ বিনিয়োগের পরামর্শ দেন লিটন।

সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনী মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা প্রতারিত হওয়ার বিস্তারিত তুলে ধরেন।

লিখিত বক্তব্যে ভুক্তভোগী শেখ আমিনুল ইসলাম জানান, ওই প্রস্তাবে সম্মত হয়ে তিন দফায় লিটনকে মোট চার লাখ ইউরো (চার কোটি টাকা) দিই।

শর্ত ছিল, রোমের টেরমিনির ভিয়া মাজ্জেনটা-১৩ ঠিকানায় অবস্থিত ৩০ রুমের একটি থ্রিস্টার হোটেল ‘জর্জি’র ৫০ শতাংশ শেয়ার, একই সঙ্গে রোমে একটি রেস্টুরেন্ট, ঢাকার মানিকদিতে ‘স্বপ্নচূড়া বিল্ডার্স’-এ শেয়ারহোল্ডার, উত্তরার একটি রেস্টুরেন্ট এবং ময়মনসিংহে একটি ইটভাটায় পার্টনার রাখবে।

কিন্তু বাস্তবে আমাদের পাঁচটি পরিবারের সঙ্গে চরমভাবে প্রতারণা করেছে লিটন। চার কোটি টাকা নিয়ে সব শেয়ার লিটন তার নিজের নামে করেছে। একপর্যায়ে প্রতারণার ঘটনা জানতে পেরে আমরা পাঁচ পরিবার তার কাছে টাকা ফেরতের দাবি করি। কয়েক বছর ঘুরেও টাকা না পেয়ে ইতালিতে আইনের আশ্রয় নিই।

ইতালির কোর্ট এক মাসের মধ্যে চার কোটি টাকা পরিশোধের জন্য লিটনকে নির্দেশ দেয়। কোর্টের নির্দেশ সত্ত্বেও লিটন অদ্যাবধি কোনো টাকা পরিশোধ করেনি। বিষয়টি রোমের সব বাংলাদেশি কমিউনিটি ও বাংলাদেশ দূতাবাসকে অবহিত করি। বাংলাদেশ দূতাবাস সব ডকুমেন্ট ইতালির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করে।

লিখিত বক্তব্যে ভুক্তভোগী পরিবারগুলো আরও জানায়, লিটন তাদের কাছ থেকে ছাড়াও দেশের অসংখ্য লোকের কাছ থেকে বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে ইতালি ও বাংলাদেশে বিপুল সম্পদের মালিক বনে গেছেন। প্রতারণা ও অপকর্মের কারণে ইতালি আওয়ামী লীগ তাকে বহিষ্কারও করেছে। এছাড়া ইতালিতে তার বিরুদ্ধে আটটি মামলা চলমান।

এইচএস/এএইচ/এমএস