EN
  1. Home/
  2. জাতীয়

‘সৌদি প্রবাসীদের অনিশ্চয়তা অনেকাংশেই দূর হয়েছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ০৩:১৭ পিএম, ০৫ অক্টোবর ২০২০

ছোটবড় উড়োজাহাজে যাত্রী পরিবহনে বেবিচক আরোপিত শর্ত তুলে নেয়ায় সৌদি প্রবাসীদের অনিশ্চয়তা অনেকাংশেই দূর হয়েছে বলে জানিয়েছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। সোমবার দুপুরে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

এর আগে উড়োজাহাজের আসনগুলোতে যাত্রী বসার ক্ষেত্রে নিয়মনীতিতে কিছুটা পরিবর্তন আনে বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। গত বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) থেকে পরিবর্তিত নির্দেশনা কার্যকর হওয়ার কথা ছিল।

সোমবার বিজ্ঞপ্তিতে বিমান মন্ত্রণালয় জানায়, সৌদিগামী যাত্রীদের দ্রুত ফেরত যাওয়ার স্বার্থে বেবিচকের আদেশ আগামী ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত শিথিল করা হয়েছে। এখন সৌদিগামী ফ্লাইটে ইকোনমি ক্লাসের শেষ সারি এবং বিজনেস ক্লাসের একটি আসন ছাড়া সকল আসনে যাত্রী পরিবহন করা যাবে।

আশা করা যাচ্ছে, এখন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স ও সাউদিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে আসন সংখ্যা বৃদ্ধির কারণে সে দেশে যেতে অনুমতিপ্রাপ্ত যাত্রীদের পরিবহনে অনিশ্চয়তা অনেকাংশেই দূর হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, কোনো ধরনের চার্জ ছাড়াই পুরোনো টিকিটধারীদের আসন বরাদ্দ করছে বিমান। যাত্রী ছাড়া অন্য সকলকে এয়ারলাইন্স অফিসে না যেতে বা ভিড় না করতে অনুরোধ এবং সকলের সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গত ২১ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, চীন, হংকং, থাইল্যান্ড ছাড়া সব দেশের সঙ্গে এবং অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রীবাহী ফ্লাইট চলাচল বন্ধের ঘোষণা দিয়েছিল বেবিচক। এরপর আরেকটি আদেশে চীন বাদে সব দেশের সঙ্গে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বিমান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

এই নিষেধাজ্ঞা সরকারি সাধারণ ছুটির সঙ্গে সমন্বয় করে পর্যায়ক্রমে ১৪ এপ্রিল, ৩০ এপ্রিল, ৭ মে, ১৬ মে, ৩০ মে এবং ১৫ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়। এর মধ্যে ১ জুন অভ্যন্তরীণ রুটে ফ্লাইট চালুর অনুমতি দেয়া হয়।

আর ১৬ জুন থেকে প্রথমবারের মতো ঢাকা থেকে লন্ডন এবং কাতার রুটে ফ্লাইট চলাচল করার অনুমতি দেয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় অন্যান্য দেশের সঙ্গেও ফ্লাইট চালু হচ্ছে।

এআর/বিএ/এমএস