EN
  1. Home/
  2. রাজনীতি

এইচএসসির বিষয়ে সরকার আবারো বিবেচনা করতে পারে : জি এম কাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ০৪:৪৮ পিএম, ১০ অক্টোবর ২০২০

জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের বলেছেন, দেশ, জাতি ও মেধাবীদের স্বার্থে উচ্চ মাধ্যমিক (এইচএসসি) পরীক্ষার বিষয়ে সরকার আবারো বিবেচনা করতে পারে।

শনিবার (১০ অক্টোবর) রাজধানীর বনানীতে জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যানের কার্যালয় মিলনায়তনে কুষ্টিয়া জেলা সাংগঠনিক সভায় তিনি এ কথা বলেন।

জি এম কাদের বলেন, যেখানে সব কিছুই খুলে দেয়া হয়েছে সেখানে শিক্ষার্থীদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এইচএসসি পরীক্ষা স্বাস্থ্যবিধি মেনে নেয়া যেতে পারে।

জাপা চেয়ারম্যান বলেন, দেশ থেকে ধর্ষণ বিদায় করতে বিদ্যমান আইন সংশোধন করে মৃত্যুদণ্ডের বিধান নিশ্চিত করতে হবে। ধর্ষণের বিচার করতে বিশেষ ট্রাইবুন্যাল গঠন করে স্বল্প সময়ের মধ্যে বিচার নিশ্চিত করতে হবে। দ্রুততার সঙ্গে রায় কার্যকর হলেই দেশ থেকে ধর্ষণের মত সামাজিক ব্যাধি দূর হবে। এতে সাধারণ মানুষের মাঝে আস্থা ফিরবে এবং অপরাধীরা অপরাধ করতে সাহস পাবে না।

এ প্রসঙ্গে ক্ষোভ জানিয়ে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, দেশে ধর্ষণ, নারী নির্যাতন এবং নারীর প্রতি সহিংসতা লজ্জাজনক অবস্থায় পৌঁছেছে।

জি এম কাদের বলেন, পল্লীবন্ধু এরশাদ এসিড সন্ত্রাস রোধ করতে মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে আইন করেছিলেন। তখন দ্রুত বিচার সম্পন্নের পর রায় কার্যকর করায় দেশ থেকে এসিড সন্ত্রাস দূর হয়েছিল। বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তোরণের জন্য ধর্ষণের সাজা মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করলেই লজ্জাজনক এ পরিস্থিতি থেকে রেহাই মিলবে।

করোনা পরিস্থিতির কথা উল্লেখ করে জি এম কাদের বলেন, বৈশ্বিক মহামারিকালে হতদরিদ্র মানুষের জীবিকার কথা বিবেচনায় রাখতে হবে। কোনো কারণেই যেন খেটে খাওয়া মানুষ পেশা না হারায় সে জন্য সরকারকে সচেতন থাকতে হবে। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জীবিকার প্রশ্নে যেন বাড়াবাড়ি না হয় সেজন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান জাপা চেয়ারম্যান।

প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং খুলনা বিভাগীয় জাতীয় পার্টির অতিরিক্ত মহাসচিব সাহিদুর রহমান টেপার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সাংগঠনিক সভায় দলের মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, যখন বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি চলছে, তখন দেশে যোগ হয়েছে ধর্ষণের মহামারি। প্রকাশ্যে নারী তার সম্মান হারাচ্ছে এটা সভ্য সমাজে মেনে নেয়া যায় না।

তিনি বলেন, দেশের মানুষ পরিবর্তন চায়, শান্তি, স্বস্তি ও নিরাপত্তা চায়। শুধু উন্নয়ন দিয়ে মানুষের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায় না। পল্লীবন্ধুর শাসনামলে দেশে খুন, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাস ছিল না। তিনি তৃণমূল পর্যায়ে দলকে আরও শক্তিশালী করতে নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।

এ সময় আরও বক্তৃতা করেন জাপার কো-চেয়ারম্যান মুজিবুল হক চুন্নু, প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভরায়, ব্যরিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী, রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ড. নুরুল আজহার শামীম।

উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাকুর রহমান মোস্তাক, হোসেন মকবুল আসিফ শাহরিয়ার, যুগ্ম মহাসচিব বেলাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. হেলাল উদ্দিন, আনোয়ার হোসেন তোতা, সৈয়দ মঞ্জুর হোসেন মঞ্জু, সাইফুল ইসলাম, মিজানুর রহমান।

সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য এমএ রাজ্জাক খান, জাকির হোসেন মৃধা, নুরুল হক নুরু, মাহমুদ আলম, দিন ইসলাম শেখ, নাজিম উদ্দিন গেরিলা, কুষ্টিয়া জেলা সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার জামিল জুয়েল।

এইউএ/এএইচ/পিআর