EN
  1. Home/
  2. রাজনীতি

দেশের দুঃসময়ে রফিক-উল হকের বিদায় অপূরণীয় ক্ষতি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ০১:৪৬ পিএম, ২৪ অক্টোবর ২০২০

দেশের প্রবীণ ও স্বনামধন্য আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার দলটির ভারপ্রাপ্ত দফতর সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স স্বাক্ষরিত এক শোকবার্তায় বিএনপি মহাসচিব বলেন, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ও দেশের খ্যাতিমান আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আইন পেশায় যে অবদান রেখেছেন তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। আইন অঙ্গনের এক উজ্জ্বল ব্যক্তিত্ব মরহুম ব্যারিস্টার রফিক-উল হক। আইন পেশায় গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা ছিল তার। বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিশ্চিতে এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় সবসময় ছিলেন সোচ্চার । অন্যায়, অবিচার ও অসঙ্গতির বিরুদ্ধে নির্ভিক ও উচ্চকণ্ঠে প্রতিবাদ জানাতে কখনও কুণ্ঠিত হননি।

ফখরুল বলেন ,আইন পেশাকে মানবসেবার অনুষঙ্গ হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন। ২০০৭ সালে জরুরি অবস্থার মধ্যেও তিনি দেশের দুইজন শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষাবলম্বন করে আইনি লড়াই চালিয়েছেন, এক্ষেত্রে তার সাহসী ভূমিকা ছিল নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। ছাত্রাবস্থায় এই তুখোড় ছাত্রনেতা পরবর্তীতে আইন পেশায় যুক্ত হবার পর রাজনীতির সংশ্রব থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়ে আইন পেশাকে জনসেবার মহান লক্ষ্য হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন। আইন পেশার পাশাপাশি নানাবিধ সমাজসেবামূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গেও জড়িত থেকে মানবসেবায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছিলেন তিনি।

তিনি বলেন, ব্যারিস্টার রফিক-উল হক ব্যক্তিজীবনে একজন সৎ, সজ্জন, আদর্শনিষ্ঠ ও দায়িত্বশীল মানুষ হিসেবে সর্বমহলে প্রশংসিত ছিলেন। দেশের বর্তমান দুঃসময়ে তার মতো একজন প্রাজ্ঞ, নীতিবান ও সাহসী আইনজ্ঞের ইহধাম ত্যাগ নিঃসন্দেহে অপূরণীয় ক্ষতি। নিয়ন্ত্রিত রাজনীতি, গণতন্ত্র ও নিয়ন্ত্রিত নির্বাচনের বিরুদ্ধে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা ও অবাধ, নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে জনপ্রতিনিধিত্বশীল সরকার প্রতিষ্ঠায় সাহসিতার সঙ্গে কাজ করে গেছেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের রুহের মৃত্যুতে তার রুহের মাগফিরাত কামনা করছি এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার, শুভাকাঙ্ক্ষী ও গুণগ্রাহীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।

কেএইচ/জেএইচ/এমএস