জাগরণের ৮ মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:০৯ পিএম, ২২ আগস্ট ২০২০

সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবেদ খান সম্পাদিত দৈনিক জাগরণের সাংবাদিকরা আট মাসের বকেয়া বেতনের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন।

শনিবার (২২ আগস্ট) দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) চত্বরে পূর্বঘোষিত এ কর্মসূচি পালন করা হয়। মানববন্ধন থেকে আগামী ৫ সেপ্টেম্বর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আরেকটি মানববন্ধনের আয়োজনের ঘোষণা দেন আন্দোলনরত সাংবাদিকরা।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ চৌধুরী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ খান ও দৈনিক জাগরণের সিনিয়র রিপোর্টার তারেক সালমান।

উপস্থিত ছিলেন ডিআরইউ কল্যাণ সম্পাদক খালেদ সাইফুল্লাহ, আপ্যায়ন সম্পাদক এইচএম আকতার, দৈনিক জাগরণের হাসিবুল ফারুক চৌধুরী, মেহ্দী আজাদ মাসুম, হালিম মোহাম্মদ, হাসান শাফিঈ, বেনু সূত্রধর, আল হেলাল শুভ, নুরুল ইসলাম, রিয়াজুল ইসলাম শুভ, আসমাউল হুসনা সুমী, ফাইজা চৌধুরী ও কাশেম হারুন।

বক্তারা জাগরণের সম্পাদক আবেদ খানকে অনতিবিলম্বে গত আট মাসের বকেয়া বেতন পরিশোধের আহ্বান জানান। অন্যথায় বেতনের দাবিতে চলমান এ কর্মসূচি আরও কঠোর করার ঘোষণা দেন তারা।

তারা বলেন, সাংবাদিকদের বেতন না দিয়ে জাগরণের মালিক কর্তৃপক্ষ যে টালবাহানা করছেন তা কোনোভাবেই সহ্য করা হবে না। দৈনিক জাগরণ সাংবাদিকদের পাওনা বেতন না দিলে শিগগিরই সম্পাদক-প্রকাশকের উত্তরার বাসভবনের সামনে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনসহ জাতীয় প্রেস ক্লাব এবং চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদফতরের সামনে কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

মানববন্ধনে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ চৌধুরী বলেন, করোনাকালেও দৈনিক জাগরণের আমাদের সহকর্মীরা মানবেতর জীবনযাপন করছেন। দেয়ালে আমাদের পিঠ ঠেকে গেছে। এখানে কোনো রাজনৈতিক মত নেই। আমরা সবাই মিলে আমাদের সহকর্মীদের দাবি আদায়ে যা করার তাই করব।

ডিআরইউয়ের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ খান জাগরণ সম্পাদক ও প্রকাশক আবেদ খানের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনি বেতন দিয়ে দেন। তা না হলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির ১ হাজার ৮০০ সদস্য ঐক্যবদ্ধভাবে দৈনিক জাগরণের সাংবাদিকদের বকেয়া বেতন আদায়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলবেন।

এইচএস/বিএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]