সাংবাদিক-কর্মচারী ছাঁটাইকারীরা গণমাধ্যমের বন্ধু নয়, শত্রু

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১০:২৫ পিএম, ০১ সেপ্টেম্বর ২০২০

করোনাকালে নানা অজুহাতে দৈনিক সমকালসহ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে আইনি বিধিবিধান উপেক্ষা করে সাংবাদিক ছাঁটাইয়ের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ জানিয়ে অবিলম্বে তা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু।

মঙ্গলবার (১ সেপ্টেম্বর) এক বিবৃতিতে ডিইউজে নেতারা বলেন, করোনার দুঃসময়ে জীবনবাজি রেখে পেশাগত দায়িত্ব পালনের পরেও সমকালসহ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে রাতের আঁধারে কোনো ধরনের আগাম নোটিশ ছাড়া যে সকল সাংবাদিককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে বা চাকরিচ্যুত করার ছক বানানো হয়েছে, তাদের সবাইকে স্ব স্ব পদে অবিলম্বে পুনর্বহাল করতে হবে। ডিইউজে মনে করে, যেসব প্রতিষ্ঠান সাম্প্রতিক দুঃসময়ে নানা অজুহাতে সাংবাদিক ছাঁটাই করছে, তারা কখনোই পাঠক ও গণমাধ্যমের বন্ধু নয়, শত্রু।

ডিইউজে নেতারা মনে করেন, ছাঁটাইয়ের পথে এগোলে সংবাদপত্রের সংকট নিরসন সম্ভব হবে না। বরং অস্থিরতা আরও বাড়াবে। সমাজে ও পেশায় নৈরাজ্য দেখা দেবে। এক্ষেত্রে সরকার-মালিক-সাংবাদিক ত্রিপক্ষীয় সভা করে শিল্প ও সাংবাদিক রক্ষায় কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে।

বিবৃতিতে বলা হয়, আগস্ট মাস আসলেই দেশে নানা ধরনের ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের প্লট তৈরি হয়। তৎপর হয়ে ওঠে চক্রান্তকারীরা। নেপথ্যে কলকাঠি নাড়তে শুরু করে কুশীলবরা। আগস্ট মাসেই মুষ্টিমেয় সংবাদপত্রের মালিকদের সংগঠন নোয়াব সাংবাদিক ছাঁটাইয়ের নামে ফন্দি-ফিকির খুঁজতে থাকে। বিভ্রান্তি তৈরির অপকৌশলের অংশ হিসেবে বিবৃতি প্রকাশ করে। এরই ধারাবাহিকতায় নোয়াব সভাপতির মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান দৈনিক সমকালে সাংবাদিক ছাঁটাই কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে।

ডিইউজে বলছে, নোয়াব গণমাধ্যমে অস্থিরতা সৃষ্টির অপকৌশল তৈরি করছে কি-না, তা সরকারকে খতিয়ে দেখতে হবে। নোয়াব সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলো সাংবাদিকদের আইনসঙ্গত ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। বিভিন্ন সংবাদপত্র, অনলাইন নিউজপোর্টাল ও টেলিভিশনে সাংবাদিক ছাঁটাইয়ের পাঁয়তারা করছে। বিভিন্ন সংবাদপত্রে বিনাবেতনে বাধ্যতামূলক ছুটি দেয়া হচ্ছে।

ডিইউজে নেতারা কড়া হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, বেতন-ভাতা খেলাপি সংবাদপত্রের কতিপয় মালিক আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে চলেছেন। দীর্ঘদিন ধরে সাংবাদিকদের বেতন-ভাতার ন্যায্য দাবি এড়িয়ে নিজেদের ঘরে কোটি কোটি টাকার মুনাফা তুলে নেয়ার পর এখন আবার নতুন বাহানা জুড়ে দিয়েছেন। সাংবাদিকদের বেতন-ভাতা না দিয়ে সরকারের কাছ থেকে বাড়তি সুযোগ-সুবিধা আদায়ের ফন্দি আঁটছেন।

অবিলম্বে এ ধরনের অন্যায্য তৎপরতা বন্ধের আহ্বান জানিয়ে কর্মচ্যুত সাংবাদিকদের পুনর্বহালের দাবি জানান ডিইউজের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। অন্যথায়, উদ্ভূত যেকোনো পরিস্থিতির দায়ভার সংবাদপত্র প্রতিষ্ঠানের মালিকদের নিতে হবে বলে স্মরণ করিয়ে দেন।

এমইউ/এসআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]