গণমাধ্যমের অগ্রযাত্রা শেখ হাসিনা সরকারের হাত ধরে এগিয়ে যাচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৫২ পিএম, ২৬ অক্টোবর ২০২২
দেশ টিভির নতুন লোগো উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ

গণমাধ্যমের অগ্রযাত্রা শেখ হাসিনার সরকারের হাত ধরে এগিয়ে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার সরকার গণমাধ্যমের বিকাশে গুরুত্ব দিয়েছে। বাংলাদেশের প্রাইভেট টেলিভিশনের যাত্রা শুরু হয় ১৯৯৬ সালে শেখ হাসিনার আমলে। এরপর ২০০৯ সালে সরকার গঠনের আগ পর্যন্ত ১০টি প্রাইভেট চ্যানেল ছিল। আজ প্রায় ৪০টি প্রাইভেট চ্যানেল দেশে সম্প্রচারে আছে। আরও কয়েকটি চ্যানেল সম্প্রচারে আসবে।

বুধবার (২৬ অক্টোবর) রাতে হোটেল ওয়েস্টিনে দেশ টিভির নতুন লোগো উন্মোচন ও গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা ২০০৯ সালে সরকার গঠন করি তখন দেশে দৈনিক পত্রিকা ছিল সাড়ে চারশ, এখন সাড়ে ১২শ পত্রিকা রয়েছে। আমরা যখন সরকার গঠন করি তখন অনলাইন গণমাধ্যমের সংখ্যা হাতেগোনা কয়েকটি ছিল। এখন কত হাজার সেটি পরীক্ষা-নিরীক্ষার বিষয়। পাঁচ হাজারের বেশি অনলাইন পোর্টাল নিবন্ধনের জন্য আবেদন করেছে, এর বাইরেও আরও আছে। সুতরাং গণমাধ্যমের এই অগ্রযাত্রা শেখ হাসিনার সরকারের হাত ধরে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা স্বল্পোন্নত দেশের তালিকাভুক্ত একটি দেশ ছিলাম। সেটি এখন মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। আমরা খাদ্য ঘাটতির দেশ ছিলাম, শেখ হাসিনার হাত ধরে এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছি। আমাদের স্বপ্ন আরও এগিয়ে যাওয়া। শুধুমাত্র বস্তুগত উন্নয়ন টেকসই না। মানুষের মানবিকতা হারিয়ে যাচ্ছে, সেটি থেকে মানুষকে মুক্ত রাখতে হবে। সেজন্য উন্নয়ন প্রয়োজন, বস্তুগত উন্নয়নের পাশাপাশি মানুষের আত্মিক উন্নয়ন প্রয়োজন।

ড. হাছান মাহমুদ আরও বলেন, গণমাধ্যম রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ শুধু নয়, গণমাধ্যম রাষ্ট্রের দর্পণ হিসেবে কাজ করে। সমাজকে সঠিক তথ্য দেওয়ার ক্ষেত্রে, নতুন প্রজন্ম তৈরি করে দেশকে স্বপ্নের ঠিকানায় নিতে গণমাধ্যম ভূমিকা রাখে। একই সঙ্গে গণমাধ্যমের সেই শক্তি আছে মানুষকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার। সেজন্য গণমাধ্যম সঠিকভাবে পরিচালিত হলে সত্যিকার অর্থে সমাজের দর্পণ হিসেবে কাজ করতে পারে।

অনুষ্ঠানে ভাষায় ভাষা সংগ্রামী আহমদ রফিক, সংগীতে আইয়ুব বাচ্চু, শিক্ষায় অধ্যাপক এ কে আজাদ চৌধুরী, চিকিৎসায় অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ, সাংবাদিকতায় মিজানুর রহমান খান (মরণোত্তর), সংস্কৃতিতে সুবীর নন্দী (মরণোত্তর), খেলাধুলায় মারিয়া মান্ডা ও জিঙ্গেল কুইন সুমনা হককে সম্মাননা জানানো হয়।

দেশ টিভি আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী, আজকের পত্রিকার সম্পাদক গোলাম রহমান, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম মিঠু প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আইএইচআর/কেএসআর/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।