বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে শিশু নির্যাতন বাড়বে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৫৮ পিএম, ১২ অক্টোবর ২০১৭ | আপডেট: ০৯:১১ পিএম, ১২ অক্টোবর ২০১৭
বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে শিশু নির্যাতন বাড়বে

সরকার প্রণীত বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে ১৯তম ধারায় উল্লেখিত অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলেমেয়ের বিশেষ প্রেক্ষাপটে বিয়ে হলে দেশে শিশু নির্যাতন বেড়ে যাবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন শিশু অধিকারকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার ঢাকার দোয়েল চত্বরে শিশু একাডেমি মিলনায়তনে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ শিশু একাডেমির যৌথ আয়োজনে জাতীয় শিশু অধিকার সপ্তাহের আলোচনা সভায় এমন অভিমত ব্যক্ত করেন দেশি-বিদেশি শিশু অধিকার সংস্থার কর্মীরা।

শিশু বিবাহ প্রতিরোধ বিষয়ে আলোচনা সভায় বক্তারা প্রস্তাবিত বিলে ১৯ নম্বর ধারাটি কিশোরীদের আর্থ-সামাজিক বিকাশের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করবে, যা সরকারের বাল্যবিবাহ শূন্যের কোটায় আনার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে প্রতিবন্ধক হিসেবে উল্লেখ করেন।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মিজানুর রহমান, পথশিশু পুনর্বাসন প্রকল্পের পরিচালক আবুল হোসেন, শিশু একাডেমির পরিচালক আনজীর লিটন, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনালের উপদেষ্টা তাহমিনা হক এবং শিশু সংগঠন চাইল্ড পার্লামেন্টের স্পিকার মেফতাহুন নাহার।

বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনের ওপর মুখ্য আলোচক ছিলেন বাংলাদেশে সেভ দ্য চিলড্রেনের ব্যবস্থাপক মামুনুর রশিদ। আলোচনা পর্বের শুরুতে শিশু বিবাহ নিয়ে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন ও বিশ্বব্যাংক পরিচালিত সম্প্রতি বৈশ্বিক জরিপের তথ্য তুলে ধরা হয়। জরিপের তথ্য মতে, বিশ্বে প্রতিদিন ২০ হাজার কন্যা শিশু জোরপূর্বক বিবাহের শিকার হয়। যেখানে দুই তৃতীয়াংশ শিশুর বিবাহ স্থানীয় ‘বয়স সীমার’ নিচে হচ্ছে।
সেভ দ্য চিলড্রেন কর্মকর্তা মামুনুর রশিদ বলেন, উদ্বেগের বিষয় হচ্ছে, বিশেষ বিধানের ক্ষেত্রে ১৮ বছরের নিচে সব শিশুকে অপ্রাপ্ত বয়স্ক হিসেবে বলা হয়েছে এবং এখানে নির্ধারিত কোনো বয়সের নির্দেশনা নাই। একই সঙ্গে আইনে ‘শিশুর সর্বোত্তম স্বার্থ’ বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে কিন্তু সর্বোত্তম স্বার্থ বলতে কি বোঝানো হবে তার কোন সুনির্দিষ্ট ব্যাখ্যা নেই।

এমএ/এমআরএম/জেআইএম