‘মিয়ানমারের সঙ্গে চুক্তির সমালোচনা যেন জেনেশুনে হয়’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৫৪ পিএম, ২৮ নভেম্বর ২০১৭

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেছেন, মিয়ানমারের সঙ্গে যে চুক্তি হয়েছে তা চলমান প্রক্রিয়া। এটা নিয়ে আলোচনার সুযোগ আছে এবং সমালোচনা হবে। সেই সমালোচনা যেন জেনেশুনে হয়। আসলে এতো ভুল কথা-বার্তা, যেটা আসলে বাস্তবে নেই। যেমন একজন বলেছেন সেদিন, ‘আগের চুক্তিতে রোহিঙ্গা শব্দ ছিল।’ না ছিল না। কারণ ওটা নিয়েই সমস্যা।

‘যাইহোক এগুলো নিয়েই আমাদের চলতে হবে। যে চুক্তি হয়েছে, সেখানে কফি আনান কমিশনের রিপোর্ট বাস্তবায়নের কথা বলেছে মিয়ানমার। এ জিনিসটা হয়তো অনেকে জানেন না। কেউ চাইলে আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে দিয়ে দেবো। এটা পড়া দরকার। না জেনে নিন্দা করা এটা একেবারেরই ঠিক না। আর একটি বিষয় প্রধান বিরোধী দলের কাজ নিশ্চয় এটার ভুল-ত্রুটি খুজে বের করবে। কিন্তু না জেনে-শুনে, না বুঝে, না পড়ে এই যে বলে ফেলা দেশবিরোধী এটা দায়িত্ব জ্ঞানহীন কাজ। এটার জবাব তো অবশ্যই আমরা দেব’- বলেন আবুল হাসান মাহমুদ আলী।

বিভিন্ন দেশে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূতদের নিয়ে তিনদিনব্যাপী অনুষ্ঠিত ‘ইনভয়েস কনফারেন্স’-এর সমাপনী অনুষ্ঠানের পর মঙ্গলবার সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, দেশের সামনে এখন সব থেকে বড় সমস্যা রোহিঙ্গা সমস্যা। এ বিসয়ে কনফারেন্সে খোলাখুলি আলোচনা হয়েছে। মিয়ানমারের সঙ্গে আমরা দ্বিপাক্ষিক আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি। যে চুক্তি হয়েছে, সেটা প্রথম পদক্ষেপ।

‘রোহিঙ্গা সমস্য বাংলাদেশ যেভাবে মোকাবেলা করছে তা গোটা বিশ্বে প্রশংসিত হয়েছে। গোটা পৃথিবী আমাদের সমর্থন করছে। বাংলাদেশ সাহসিকতার সঙ্গে যেভাবে এটা মোকাবেলা করছে, সেটা গোটা পৃথিবীতে প্রশংসিত হয়েছে। একই সঙ্গে শক্তিধর বিভিন্ন দেশ বিভিন্নভাবে অবস্থান নিয়েছে। সেগুলো বিবেচনায় নিয়ে আমরা এগিয়ে যাচ্ছি। সে জন্য অনেক সময় মনে হয় কেউ কেউ আমাদের বিরোধিতা করছে। আসলে কেউ আমাদের বিরোধিত করছে না। তাদের সমর্থনের স্টাইলের মধ্যে তফাৎ আছে’-বলে তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের সর্বশেষ যে বৈঠকটি হয়েছিল, সেই বৈঠকে যারা বক্তব্য দিয়েছেন তারা একই ধরনের আমাদের সমর্থনে বক্তব্য দিয়েছেন। আমরা যে কথা বলেছি, সেটাই সবাই এক বাক্যে সমর্থন করেছে। মূলত কফি আনান কমিশনের যে রিপোর্ট, সেটাকে সবাই সমর্থ করেছে।

এমএএস/জেডএ/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :