‘নয় মাসে দেশ স্বাধীন করা গেলে সিভিল এভিয়েশনকে গতিশীল করা সম্ভব’

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৩৫ এএম, ১০ জানুয়ারি ২০১৮

দায়িত্ব নেয়ার পর প্রথম সিভিল এভিয়েশন সদর দফতর পরিদর্শন করেছেন বিমানমন্ত্রী এ কে এম শাহজাহান কামাল। পরিদর্শন করে তিনি কর্মকর্তাদের বলেছেন, নয় মাসে যদি একটি দেশ স্বাধীন করা যায়, তাহলে সিভিল এভিয়েশানকে কেন এ সময়ে গতিশীল করা যাবে না? তিনি বলেন, কোনো ধরনের অজুহাত শুনতে বা মানতে রাজি নন। তার দরকার কাজ। আগামী নয় মাসে পরিকল্পনার সব কাজ সম্পন্ন করতে হবে।

মঙ্গলবার সকালে সিভিল এভিয়েশন অথরিটির সদর দফতরে এক মতবিনিময় সভায় তিনি বেবিচকের শীর্ষ কর্মকর্তাদের এ তাগিদ দেন। সভা শেষে মন্ত্রী হযরত শাহজালাল বিমানবন্দর পরিদর্শন করেন। সকালে তিনি সেখানে হাজির হলে কনফারেন্স রুমে গিয়ে দীর্ঘ বৈঠক করেন। এ সময় তাকে সিভিল এভিয়েশনের বিভিন্ন প্রকল্প পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে দেখান চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল নাইম হাসান।

সিভিল এভিয়েশনের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল নাইম হাসান এ পর্যন্ত নেয়া বিভিন্ন প্রকল্প সম্পর্কে ব্রিফ দেন। এ সময় কোন প্রকল্পের কী অবস্থা সেটা জানতে চান মন্ত্রী। চেয়ারম্যান বলেন, প্রথম দিনের সফর মূলত প্রতিষ্ঠান ও কর্মকর্তাদের সম্পর্কে কুশলাদি বিনিময় ও একে অপরকে জানা শোনার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। এরপর মন্ত্রী কার্গো ভবনের পরিদর্শন করে শাহজালাল বিমানবন্দরের বিভিন্ন জায়গা ঘুরে ফিরে দেখেন।

মন্ত্রী হিসেবে যোগদানের পর প্রথমবারের মতো তিনি আসেন সিভিল এভিয়েশনে। এসে বিস্তারিত জানার পর নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে এ কে এম শাহজাহান কামাল বলেন, দেশের বিনিয়োগ, বাণিজ্য ও আমদানি-রফতানি কার্যক্রম বৃদ্ধির কারণে ক্রমেই বিমান ও বিমানবন্দরের কার্যক্রম গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে।

তিনি বলেন, নয় মাসে দেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে, একটি মন্ত্রণালয়কে গতিশীল করতে নয় মাস সময় কম নয়। দ্রুততম সময়ের মধ্যে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের থার্ড টার্মিনাল নির্মাণ এবং কক্সবাজার বিমানবন্দরের দ্বিতীয় ফেজের কাজ শুরু করতে হবে। শাহজালাল বিমানবন্দরের গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং কার্যক্রমকে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করে যাত্রীসেবার মান উন্নয়নে আন্তরিক হতে হবে।

আরএম/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :