আমন সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ল আরও দেড় লাখ টন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:০০ এএম, ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

খাদ্য পরিকল্পনা ও পরিধারণ কমিটির সভায় এবার আমন মৌসুমে ৩ লাখ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। কিন্তু সংগ্রহ পরিস্থিতি ভাল হওয়ায় লক্ষ্যমাত্রা প্রথম দফায় দেড় লাখ টন বাড়ানো হয়। সর্বশেষ লক্ষ্যমাত্রা আরও দেড় লাখ টন বাড়ানো হয়েছে। তাই এবার সরকার অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে মোট ৬ লাখ টন আমন চাল সংগ্রহ করবে।

বর্ধিত চাল সংগ্রহের জন্য খাদ্য অধিদফতর থেকে গত ৩১ জানুয়ারি সাত বিভাগের আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কাছে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে।

এর আগে গত বছরের ৩০ নভেম্বর খাদ্য পরিকল্পনা ও পরিধারণ কমিটির (এফপিএমসি) সভায় ৩৯ টাকা দরে তিন লাখ টন আমন চাল কেনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়।

খাদ্য অধিদফতরের একজন কর্মকর্তা জানান, আমনের ফলন ভাল হয়েছে এবং সংগ্রহ পরিস্থিতিও ভাল। এজন্য মজুদ বাড়াতে আমন সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা বাড়ানো হয়েছে।

গত ৩ ডিসেম্বর থেকে আমন সংগ্রহ কর্মসূচি শুরু হয়েছে। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমন কেনা হবে।

আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কাছে নির্দেশনাপত্রের তথ্যানুযায়ী, দুই দফা বাড়ানোর পর রাজশাহী বিভাগ থেকে ১ লাখ ৭৭ হাজার ৫৩৬ টন, রংপুর থেকে ২ লাখ ২৫ হাজার ৪৩৮ টন, ঢাকা থেকে ৮৮ হাজার ১৩৫ টন, খুলনা থেকে ৭৪ হাজার ৯৭১ টন, চট্টগ্রাম থেকে ১৭ হাজার ৩১৪ টন, সিলেট থেকে ১ হাজার ২২৩ টন এবং বরিশাল বিভাগ থেকে ১৫ হাজার ৩৮৩ টন চাল সংগ্রহ করা হবে।

খাদ্য অধিদফতরের তথ্য অনুযায়ী, ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রায় ৪ লাখ টন আমন চাল সংগ্রহ করা হয়েছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এবার প্রতি কেজি আমন চালের উৎপাদন ব্যয় হয়েছে ৩৭ টাকা দুই পয়সা।

৩০ জানুয়ারি খাদ্য অধিদফতরের তথ্যানুযায়ী, দেশে সরকারি খাদ্যশস্যের মোট মজুদের পরিমাণ ১১ লাথ ৯০ হাজার ২৭০ টন। এরমধ্যে চাল ৮ লাখ ৩৬ হাজার ৯৭০ টন, গম ৩ লাখ ৫৩ হাজার ৩০০ টন।

খাদ্য অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানান, চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকার খাদ্য মজুদের পরিমাণ দ্রুততম সময়ের মধ্যে ১৫ লাখ টনে উন্নীত করতে চায়। এজন্য আমন সংগ্রহে জোর দেয়া হয়েছে।

আরএমএম/এমবিআর/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :