আইটেক-আইসিসিআর দিবস সোমবার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:১৭ পিএম, ১৩ মার্চ ২০১৮

ভারতীয় কারিগরি ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা (আইটেক) কর্মসূচি এবং ভারতীয় সাংস্কৃতিক সম্পর্ক পরিষদ (আইসিসিআর) দিবস উদযাপন করতে যাচ্ছে।

মঙ্গলবার ভারতীয় দূতাবাসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তির তথ্য অনুযায়ী, আগামী ১৯ মার্চ ২০১৮, সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা পর্যন্ত জাতীয় জাদুঘরের মূল মিলনায়তনে এ দিবসটি পালিত হবে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বলেও জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ১৯৬৪ সালে ভারতীয় কারিগরি ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা এবং দক্ষিণ-দক্ষিণ সহযোগিতা কৌশল কাঠামোর আওতায় ভারতের উন্নয়ন সহযোগিতা কর্মসূচির অংশ হিসেবে আইটেক কর্মসূচি প্রচলিত হয়; যার মাধ্যমে উন্নয়নশীল দেশগুলোকে ভারতের উন্নয়ন অভিজ্ঞতা এবং যথাযথ প্রযুক্তির সুবিধা প্রদাণ করা হয়।

প্রতি বছর হিসাব, নিরীক্ষা, ব্যবস্থাপনা, এসএমই, গ্রামীণ উন্নয়ন, সংসদীয় বিষয়াবলীর মতো বিভিন্ন ক্ষেত্রে প্রশিক্ষণ কোর্সের জন্য ১৬১টি সহযোগী দেশে ১০ হাজারের বেশি প্রশিক্ষণ পর্বের আয়োজন করা হয় বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

২০০৭ সাল থেকে আইটেক কর্মসূচির অধীনে ৩,৫০০ এর বেশি বাংলাদেশি তরুণ পেশাজীবী ভারতে এ ধরনের বিশেষায়িত স্বল্প ও মধ্যম পর্যায়ের কোর্স সম্পন্ন করেছে।

ভারত সরকার ১৯৭২ সাল থেকে ভারতীয় সাংস্কৃতিক সম্পর্ক পরিষদ (আইসিসিআর) এর মাধ্যমে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি দিয়ে আসছে। চিকিৎসা শাস্ত্র ছাড়া স্নাতক থেকে পোস্ট ডক্টরাল পর্যায়ে সকল বিষয়ে আইসিসিআর বৃত্তি দেয়া হয়।

এ পর্যন্ত ভারতে অধ্যয়নের জন্য ৩,২০০ এর বেশি মেধাবী বাংলাদেশী শিক্ষার্থীকে আইসিসিআর শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। তারা সকলেই বাংলাদেশ এবং দেশের বাইরে স্ব স্ব ক্ষেত্রে সুপ্রতিষ্ঠিত।

বিশিষ্ট অতিথিবর্গের পাশাপাশি আইটেক এবং আইসিসিআর এর বিভিন্ন পর্যায়ের প্রায় ৭০০ প্রাক্তণ শিক্ষার্থী ১৯ মার্চ, ২০১৮ আইটেক এবং আইসিসিআর দিবসে অংশ নেবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

প্রাক্তণ আইসিসিআর শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় একটি সংক্ষিপ্ত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়েছে দিবসটি উপলক্ষে। অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করবেন দেবলীনা সুর, ভরতনাট্যম পরিবেশন করবেন অর্থি আহমেদ এবং কত্থত নৃত্য পরিবেশন করবেন ওয়াফি রহমান অনন্যা।

জেপি/এইউএ/এমবিআর/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :