উপজেলা পরিষদের জমি আত্মসাৎ : চেয়ারম্যান মহব্বতকে অপসারণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:৩৫ এএম, ২৮ মার্চ ২০১৮

জালিয়াতি করে পরিষদের জমি আত্মসাৎ করায় ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মহব্বত জান চৌধুরীকে অপসারণ করেছে সরকার।

তদন্তে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় গত ২৪ মার্চ স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে মহব্বত জানকে অপসারণ করে আদেশ জারি করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে ২০১৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি বোরহানউদ্দিন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জয়লাভ করেন মহব্বত জান। এরপর তার বিরুদ্ধে ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে নিজের নামে উপজেলা পরিষদের জমি অবৈধভাবে নিবন্ধন করে নেয়ার অভিযোগ উঠে। পরে ২০১৭ সালের ৭ মে মহব্বত জানকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার বিভাগ। একই সঙ্গে অভিযোগ তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয় বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার ও বরিশালের জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসারকে।

স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে জারি করা অপসারণ আদেশে বলা হয়েছে, মহব্বত জান চৌধুরী বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা দুটি তদন্তেই প্রমাণিত হয়েছে।

এতে বলা হয়, উপজেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী কারণ দর্শানোর পরিপ্রেক্ষিতে দাখিলকৃত জবাব ও ব্যক্তিগত শুনানিতে তিনি তার বিরুদ্ধে আনা উপজেলা পরিষদের জমি আত্মসাতের অভিযোগ অস্বীকার করলে নালিশি জমির বাস্তব দখলের বিষয়ে নিশ্চিত হতে সরেজমিন তদন্ত করে স্কেচম্যাপসহ প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বরিশালের জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসারকে দায়িত্ব দেয়া হয়।

বরিশালের জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসার তদন্ত প্রতিবেদন ও স্কেচম্যাপ দাখিল করেন।

বরিশালের বিভাগীয় কমিশনার ও জোনাল সেটেলমেন্ট অফিসারের তদন্তেই মহব্বত জান চৌধুরীর বোরহানউদ্দিন উপজেলার কুতুবা মৌজার ১২৪৯ নং খতিয়ান (এস, এ ৩৮৪) এর ২০৬৯ নং দাগের ০.১৬ একর জমি ৪৬৪২/২০১৬ নং দলিলের মাধ্যমে নিজ নামে নিবন্ধন করে আত্মসাৎ করার অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

আদেশে বলা হয়েছে, উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পরিষদের সকল সম্পত্তির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বপ্রাপ্ত। কিন্তু বোরহানউদ্দিন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় মহব্বত জান চৌধুরী উপজেলা পরিষদের জমি আত্মসাৎ করেছেন যা অত্যন্ত গর্হিত এবং কোনোভাবেই কাম্য নয়।

জমি আত্মসাৎ করা উপজেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ উল্লেখ করে আদেশে বলা হয়েছে, এজন্য ‘উপজেলা পরিষদ আইন, ১৯৯৮ (উপজেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১১ দ্বারা সংশোধিত)’ এর ১৩(২) ধারা অনুসারে মহব্বত জান চৌধুরীকে চেয়ারম্যানের পদ হতে অপসারণ করা হলো।

আরএমএম/এমবিআর/পিআর