কোটার আন্দোলনে বেচাকেনা শূন্যের কোটায়

মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল
মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১০:২৬ পিএম, ১০ এপ্রিল ২০১৮

‘কী আর কমু। তিনদিনের কোটার আন্দোলনে বেচাকেনা বলতে গেলে শূন্যের কোটায় নেমে এসেছে। কখনো রাস্তা অবরোধ, আবার কখনও ভয়ে মার্কেটে আসছে না মানুষ।’

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের তৃতীয় তলায় ক্যাশ কাউন্টারে বসে বেচাকেনার দুরবস্থার কথা জানাচ্ছিলেন ‘পরশ’ নামের দোকানের মালিক শাহাদাত হোসেন সুমন। শুধু সুমন একা নন, মার্কেটের অধিকাংশ দোকানি কাস্টমার না থাকায় বিক্রি কমে যাওয়ায় হতাশ।

a

তারা বলেন, আর মাত্র তিনদিন পর বাংলা নববর্ষ ১৪২৫। এদিন সকলে মিলে প্রাণের উৎসবে মেতে উঠে। বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নিতে কয়েকদিন আগে থেকে বেচাকেনা জমে উঠে। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকাররা পোশাক কিনে নিয়ে যায়। কিন্তু শাহবাগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় কোটাব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীদের রাস্তা অবরোধের কারণে গত বছরের তুলনায় বেচাকেনা নেই বললেই চলে।

শাহবাগের এই মার্কেটটি সাধারণত মঙ্গলবার বন্ধ থাকে। কিন্তু বৈশাখ উপলক্ষে এখন মঙ্গলবারও মার্কেটটি খোলা থাকছে। এই মাকের্ট বেশাখী কেনাবেচার জন্য সারাদেশে এক নম্বর মার্কেট।

a

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে পৌনে ৮টা পর্যন্ত সরেজমিনে দেখা গেছে, মার্কেটটির নিচতলা থেকে তৃতীয় তলা পর্যন্ত বিভিন্ন দোকানে নারী, পুরুষ ও শিশুদের বাহারি রং ও ডিজাইনের বৈশাখী পোশাক সাজানো। কিন্তু ক্রেতার সংখ্যা হাতেগোনা। একজন ক্রেতা দেখলেই সব দোকান থেকে ডাকাডাকি শুরু হয়।

ক্রেতাদের প্রলুব্ধ করতে দোকানভেদে শতকরা ২০ থেকে ৫০ ভাগ কমিশনের নোটিশও ঝুলানো আছে। মার্কেটে ‘কারখানা’ নামের একটি দোকানে বসে হাই ভলিউমে গান শুনছিলেন দোকানি।

q

বেচাকেনা কেমন, কোটার এই আন্দোলনে বেচাকেনায় কোনো প্রভাব পড়েছে কি না- বলতেই তিনি চোখ বাঁকিয়ে বলেন, দিলেন তো মনটা খারাপ করে। কী আর বলবো, কোটায় আমাগো বেচাকেনা লাটে উঠাইছে।

১০ বছর বয়সী ছেলে রাইয়ানের জন্য বৈশাখীর রঙিন পাঞ্জাবি কিনতে রাজধানীর কলাবাগান থেকে আসেন বাহরাম খান দম্পতি। বাহরাম বলেন, কয়েকদিন আগেই ছেলের পোশাক কিনব বলে মনস্থির করলেও টিভিতে শাহবাগ এলাকায় শিক্ষার্থীদের আন্দোলন ও রাস্তা অবরোধে মানুষের ভোগান্তি দেখে আর আসিনি। তবে কোনো কোনো দোকানি জানিয়েছেন বেচাকেনা খুব খারাপ না। আজ মঙ্গলবার এ অঞ্চলে মার্কেটগুলো সাধারণত বন্ধ থাকে। তাই ক্রেতারা আসেনি। ফলে বেচাকেনা খুবই কম।

এমইউ/জেডএ/বিএ