সরকারি দফতরে রাজাকারের স্থান নেই : তথ্যমন্ত্রী

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:০৮ পিএম, ১৭ মে ২০১৮

তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, সরকারে যেমন আর কখনো রাজাকার-সন্ত্রাসীদের স্থান দেয়া যাবে না, সরকারি দফতরগুলোতেও তেমনি জঙ্গি-রাজাকার-অনুচরদের স্থান হবে না। বৃহস্পতিবার বিকেলে ঢাকার আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভের ৪০ বছর পূর্তি উদ্বোধন সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তথ্য সচিব আবদুল মালেক এবং চলচ্চিত্রকার আমজাদ হোসেন আর্কাইভের মহাপরিচালক শচীন্দ্র নাথ হালদার সভাপতিত্ব করেন। দেশের চলচ্চিত্র জগতের ইতিহাসের দিকে দৃষ্টিপাত করে তথ্যমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা জানিয়ে বলেন, বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার পথে একদিকে যেমন জাতীয়তাবাদী সংগ্রাম চালিয়েছেন, আরেকদিকে গড়েছেন শিল্প-সাহিত্য-সাংস্কৃতিক আন্দোলন। তিনি ঢাকায় এফডিসি প্রতিষ্ঠা করে বাংলা চলচ্চিত্র নির্মাণের দিগন্ত উন্মোচন করেন।

সেই বঙ্গবন্ধুর কন্যাও সংস্কৃতি চর্চায় পরম যত্নবান উল্লেখ করে ইনু বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেই আজ দেশের ফিল্ম আর্কাইভটি এখন বিশ্বমানে। আর ২০২১ সালের বিশ্ব ফিল্ম আর্কাইভ কংগ্রেস ঢাকায় আয়োজনের সম্মান দেশের একটি বড় অর্জন।

যাদের ইতিহাস নেই, তারাই ইতিহাস ধ্বংস করে, আর শেখ হাসিনা ইতিহাসের পক্ষে তাই আর্কাইভ গড়েছেন। কারণ আর্কাইভ সঠিক ইতিহাস রক্ষা করে।

তথ্য সচিব আবদুল মালেক বলেন, ফিল্ম আর্কাইভ ইতিহাস, বর্তমান ও ভবিষ্যতের সংযোগ এবং সরকার দেশের ঐতিহ্য ও কৃষ্টি ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে পৌঁছাতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

চলচ্চিত্র অঙ্গন থেকে প্রখ্যাত অভিনেত্রী রোজিনা, চলচ্চিত্রকার মোরশেদুল ইসলাম, গবেষক ড. মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন, চিত্রনায়িকা অঞ্জনা, দিলারা প্রমুখ সভায় অংশ নেন। প্রধান তথ্য অফিসার কামরুন নাহার, তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আবুয়াল হোসেন, জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মো. রফিকুজ্জামান, চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. ইসতাক হোসেনসহ কর্মকর্তারা সভা শেষে আর্কাইভের ৪০ বছর উপলক্ষে অনুপম হায়াতের প্রবন্ধের ওপর সেমিনারে অংশ নেন।

এর আগে ভবন চত্বরে পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে ৪০ বছর পূর্তি উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী।

এফএইচএস/এমআরএম/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :