অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে তিতাস

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:১৪ পিএম, ১৯ অক্টোবর ২০১৮

অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করছে তিতাস। আর্থিক জালিয়াতি-দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ার পর এ সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে তিতাস।

জানা গেছে, বিভিন্ন অভিযোগের কারণে গত ১৭ অক্টোবর সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয় তিতাসের ৫ কর্মকর্তাকে। দুইজনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পেট্রোবাংলার কাছে সুপারিশ করা হয়েছে। এরপর গতকাল সাত কর্মকর্তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে কোম্পানি। এছাড়া ২২ জনকে বদলি করা হয়েছে। যার মধ্যে ১১ জনকে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়েছে।

আর্থিক জালিয়াতি-দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগে তিতাসের তদন্তে এসব বিষয়ে প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ায় কয়েকজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আইন অনুসারে ব্যবস্থা নিতে চিঠি দিয়েছে পেট্রোবাংলা। এর মধ্যে ৫ অভিযুক্ত কর্মকর্তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার আরও দুই জনকে শোকজ করা হয়। বদলি করা ২২ জনের মধ্যে ১১ জনকে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়েছে।

তিতাস গ্যাস বিতরণ কোম্পানি সূত্র জানায়, প্রতিমাসে গ্রাহক যে বিল দিয়ে তার একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ গ্যাস উন্নয়ন তহবিল ও জ্বালানি নিরাপত্তা তহবিলে জমা রাখতে হয়। বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন ও জ্বালানি বিভাগের নির্দেশনা রয়েছে, সরকারি কোনো ব্যংকে এ অর্থ রাখতে হবে। কিন্তু তিতাসের হিসাব বিভাগের কর্মকর্তারা বিপুল পরিমাণে এসব টাকা একটি বেসরকারি ব্যাংকে রেখেছিলেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক তিতাসের এক কর্মকর্তা বলেন, তদন্তে দুর্নীতির প্রাথমিক প্রমাণ পাওয়ায় কয়েকজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আইন অনুসারে ব্যবস্থা নিতে চিঠি দিয়েছে পেট্রোবাংলা। এর মধ্যে ৫ অভিযুক্ত কর্মকর্তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। এছাড়া আরও কয়েকজনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। অন্য কয়েকজনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বোর্ডের (পরিচালনা পর্ষদ) অনুমোদন প্রয়োজন। বোর্ডের সিদ্ধান্ত অনুসারে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে তিতাসের জনসংযোগ কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেন, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। যাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বা হচ্ছে সে বিষয়ক চিঠি এখনও হাতে পায়নি। চিঠি পাওয়ার পর আরও বিস্তারিত বলা যাবে।

এএস/আরএস/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :