আগামী একুশে ফেব্রুয়ারিও ৯ ফাল্গুন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৩৩ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৮

ইংরেজি ক্যালেন্ডারের সঙ্গে বাংলা বর্ষপঞ্জির বিশেষ দিনগুলোর সমন্বয় আনতে বাংলা বর্ষপঞ্জিতে পরিবর্তন আনা হচ্ছে। গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জির সঙ্গে বাংলা একাডেমির বর্ষপঞ্জি সংস্কার কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী, ২০১৯ সালে সরকারি ক্যালেন্ডারেই সংস্কারকৃত তারিখগুলো উল্লেখ থাকার কথা রয়েছে। কিন্তু সরকার আগামী বছরের যে ছুটির তালিকা করে সেখানে কিছুটা বিচ্যুতি হয়েছিল।

সংস্কার কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০২০ সাল থেকে শহীদ দিবস ও আন্তর্জতিক মাতৃভাষা দিবস ২১ ফেব্রুয়ারি হবে বাংলা সনের ৮ ফাল্গুন। কিন্তু গত ১ নভেম্বর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ২০১৯ সালের ছুটির যে তালিকা প্রকাশ করে সেখানে ২১ ফেব্রুয়ারিকে ৮ ফাল্গুন উল্লেখ করা হয়।

সংস্কার কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী, চলতি ১৪২৫ বঙ্গাব্দের ফাল্গুন মাস হবে ৩০ দিনে। এরপর থেকে প্রতি অধিবর্ষে (লিপইয়ার) অর্থাৎ যে বছর ফেব্রুয়ারি মাস ২৯ দিনে হয় সেই বছর ফাল্গুন মাসের ৩০ দিন হিসাব করা হবে। তাই ২০১৯ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ৯ ফাল্গুনই থাকবে। এতে পরের বছর থেকে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই ২১ ফেব্রুয়ারি ৮ ফাল্গুন হয়ে যাবে।

jagonews

আগের প্রজ্ঞাপন, যা গত ১ নভেম্বর জারি করা হয়

আগে লিপইয়ারে ফাল্গুন মাস একদিন বাড়িয়ে ৩১ দিন গণনা করা হতো। সংস্কারের এই প্রেক্ষাপটে আগামী বছর যদি ২১ ফেব্রুয়ারি ৮ ফাল্গুন হয় তবে ১৩ ও ১৪ ফেব্রুয়ারি দুটো দিনকেই ১ ফাল্গুন হিসেবে গণনা করতে হবে।

এই অবস্থায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় আগের ছুটির তালিকার আদেশটি বাতিল করে ১৪ নভেম্বর সংশোধিত নতুন আদেশ জারি করে। যেটি রোববার প্রকাশ করা হয়েছে। নতুন তালিকায় ২০১৯ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি হবে ৯ ফাল্গুন।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষার জন্য আত্মত্যাগের দিনটি ছিল বাংলা বর্ষপঞ্জির ৮ ফাল্গুন। কিন্তু এখন ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা পালনের দিনটি বাংলা বর্ষপঞ্জির ৯ ফাল্গুন হয়।

এ বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, এটি ছিল অনিচ্ছাকৃত ভুল। বিষয়টি আমাদের নজরে আসার পরই আগের আদেশটি প্রত্যাহার করি। বাংলা একাডেমির সুপারিশ অনুযায়ী, এটি সংশোধন করে ফের জারি করা হয়েছে।

jagonews

সংশোধিত প্রজ্ঞাপন, যা ১৪ নভেম্বর জারি করা হয়

১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ছিল ১ পৌষ। কিন্তু এখন ১৬ ডিসেম্বরের দিন হয় ২ পৌষ। সংস্কারের কারণে আগামী ইংরেজি বছর থেকে ১৬ ডিসেম্বর হচ্ছে ১ পৌষে।

পরিবর্তিত বর্ষপঞ্জিতে বৈশাখ থেকে আশ্বিন মাস ৩১ দিনে, কার্তিক থেকে মাঘ এবং চৈত্র মাস ৩০ দিনে গণনা করা হবে।

গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারের সঙ্গে বাংলা বর্ষপঞ্জির তারিখগুলোর সমন্বয় করার উদ্দেশ্যে ২০১৫ সালে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খানকে সভাপতি করে একটি কমিটি করা হয়। সেই কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী এসব সংস্কার আনা হচ্ছে।

আরএমএম/জেডএ/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :