এইদিনে শত্রু মুক্ত হয় ভেড়ামারা ও পলাশবাড়ী

ফজলুল হক শাওন
ফজলুল হক শাওন ফজলুল হক শাওন , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ এএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৮

আজ ৮ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এই দিনে শত্রুমুক্ত হয় কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা ও পলাশবাড়ী। এদিন পাক হানাদারদের পরাজিত করে মিত্র বাহিনীর সহায়তায় মুক্তিযোদ্ধারা কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা ও পলাশবাড়ীকে শত্রুমুক্ত করে। বিজয়ের আনন্দে উল্লাস করে এই দুই এলাকার মানুষ। দীর্ঘ নয় মাস পর তাদের যুদ্ধ জীবনের অবসান ঘটে।

এই দিন ৮নং সেক্টর কমান্ডার মেজর আবুল মুনছুর ও জেলা কমান্ডার রাশেদুল আলমের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা ২ ভাগে বিভক্ত হয়ে ভোর ৭টার সময় ভেড়ামারার ফারাকপুরে পাক হানাদার বাহিনীর সঙ্গে সম্মুখ যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়। প্রায় ৭ ঘণ্টাব্যাপী সেই যুদ্ধে ৮ পাক সেনা নিহত হয়। এখানে মুক্তিযোদ্ধা ও পাক হানাদার বাহিনীর মধ্যে অন্তত ১৫টি খণ্ডযুদ্ধ সংঘটিত হয়। এসব যুদ্ধে বীরত্বের সঙ্গে লড়াই করে ৮ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন।
মুক্তিযোদ্ধা ও মিত্র বাহিনীর দুর্বার প্রতিরোধের মুখে টিকতে না পেরে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ দিয়ে পাক হানাদার বাহিনী পালিয়ে যায়। যাবার সময় তারা মাইন (বোমা) চার্জ করে ব্রিজের ১২ নং স্প্যানের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে।

এছাড়া পলাশবাড়ী মুক্ত দিবসের এই দিনে ঘাতক পাক বাহিনী এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয়ভাবে দিনটি বড়ই বেদনা বিধুর। হানাদার বাহিনীর পতনের পর এলাকার সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে মুক্তির উল্লাস। আনন্দ উদ্বেলিত কণ্ঠে ‘জয় বাংলা’ ‘জয় বাংলা’ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠেছিল পলাশবাড়ীর আকাশ বাতাস। পাক বাহিনীর নানা শিহরিত ও লোমহর্ষক হত্যাযজ্ঞ চালানোর এক পর্যায়ে সেদিন পলাশবাড়ী এলাকা পাক হানাদার মুক্ত হয়।

এফএইচএস/এমএমজেড/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :