মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক আয়োজন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০১:৩৭ এএম, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৮

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে রোববার বিকেলে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অবস্থিত স্বাধীনতা জাদুঘর মিলনায়তনে পরিবেশিত হয়।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক মো. রিয়াজ আহমেদ, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. নিজাম উদ্দিন ও মো. আব্দুল মান্নান ইলিয়াস, যুগ্মসচিব মো. ফয়জুর রহমান ফারুকী ও হাসনা জাহান খানম প্রমুখ।

সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে প্রধান অতিথি বলেন, স্বাধীনতার ৪৭তম বিজয় বার্ষিকীতে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, ত্রিশ লক্ষ শহিদ মুক্তিযোদ্ধা ও দুই লক্ষ মা-বোনদের যাদের সম্ভ্রমের বিনিময় এ মহান স্বাধীনতা অর্জন করেছি।

তিনি বলেন, এর মধ্যে আমরা অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে যথেষ্ট অগ্রগতি অর্জন করেছি এবং অর্থনৈতিক মুক্তির পথে রয়েছি। বিশেষ করে বিগত দশ বছরে আমরা উন্নয়নের মহাসড়কে প্রবেশ করেছি।

তিনি আরও বলেন, আজকের বিজয়ের এ দিনে স্বাধীনতা বিরোধী সকল অপশক্তিকে প্রতিহত করে অসাম্প্রদায়িক, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবহ সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়তে আসুন আমরা সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করি।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শুরুতে সংগীত পরিবেশন করেন নতুন প্রজন্মের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী নন্দিতা ও ইউসুফ। শিল্পী ইউসুফ একে একে গেয়ে শোনান- যে মাটির বুকে ঘুমিয়ে আছে লক্ষ মুক্তিসেনা, সূর্যোদয়ে তুমি, সূর্যাস্তেও তুমি ও আমার বাংলাদেশ প্রিয় জন্মভূমি, এক তাজমহল গড় হৃদয়ে তোমার, আমাকে পোড়াতে যদি এত লাগে ভালো...ইত্যাদি।

অন্যদিকে শিল্পী নন্দিতা পরিবেশন করেন- এ সুন্দর স্বর্ণালী সন্ধ্যায়, কিছুক্ষণ আর না হয় রহিতে কাছে, আজ মন চেয়েছে আমি হারিয়ে যাব...ইত্যাদি গান।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নৃত্যশিল্পীদের পরিবেশনায় অনুষ্ঠিত হয় দুইটি মনোমুগ্ধকর নৃত্য। নৃত্যানুষ্ঠানের পরে সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী রেজওয়ান। সবশেষে সংগীত পরিবেশন করেন বাউলশিল্পী সমীর দেওয়ান।

এর আগে সকালে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ সাভারে অবস্থিত জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের শ্রদ্ধা জানায়।

এমইউ/এমবিআর

আপনার মতামত লিখুন :