চট্টগ্রামে জেএসসিতে বেড়েছে পাসের হার, কমেছে জিপিএ-৫

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৩:১৪ পিএম, ২৪ ডিসেম্বর ২০১৮

চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে এ বছর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় পাসের হার কিছুটা বাড়লেও জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে প্রায় অর্ধেক। পাশাপাশি কমেছে গোল্ডেন জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যাও। তবে বরাবরের মতোই এবারও পিছিয়ে আছে তিন পার্বত্যজেলার শিক্ষার্থীরা।

সোমবার দুপুরে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ড কার্যালয়ে জেএসসি পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেন চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. মাহবুব হাসান।

তিনি জানান, এ বছর চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের অধীনে ১ হাজার ২৪০টি বিদ্যালয়ের ২ লাখ ২ হাজার ৪৫৫ জন পরীক্ষার্থী জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্যে পাস করেছে ১ লাখ ৬৫ হাজার ৩৮ জন পরীক্ষার্থী। ২০১৭ সালে পাসের হার ছিলে ৮১.১৭ শতাংশ। সে হিসাবে এবার পাসের হার ০.৩৫ শতাংশ বেড়েছে।

এ ছাড়া চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫ হাজার ২৩১ জন শিক্ষার্থী। ২০১৭ সালে জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল ১০ হাজার ৩১৫ জন। সে হিসাবে এবার জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে প্রায় অর্ধেক।

জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীর সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে কমে যাওয়ার বিষয়ে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. মাহবুব হাসান জাগো নিউজকে বলেন, ‘ধারাবাহিক মূল্যায়ন পদ্ধতি চালু হওয়ায় এ বছর জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষায় বোর্ডের ফল প্রক্রিয়াকরণে চতুর্থ বিষয় বিবেচনা করা হয়নি। এ কারণে গত বছরের তুলনায় এ বছর জিপিএ-৫ প্রাপ্ত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা কমেছে। এবার প্রথমবারের মতো নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চতুর্থ বিষয় মূল্যায়ন করা হয়।’

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরাবরের মতোই এবারও ফলাফলে তিন পার্বত্যজেলার শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে আছে বলে জানালেও এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যায়নি।

এবার চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের অধীনে ১ হাজার ২৪০টি বিদ্যালয়ের ২ লাখ ২ হাজার ৪৫৫ জন পরীক্ষার্থী জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়। এর মধ্য ৯১ হাজার ৯৪ জন ছাত্র এবং ১ লাখ ১৪ হাজার ৪৪৩ জন ছাত্রী। এর মধ্যে নগরসহ চট্টগ্রাম থেকে ৭৭৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১ লাখ ৪১ হাজার ৫৪ জন, কক্সবাজার থেকে ১৮০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৩২ হাজার ৮২৩ জন, রাঙামাটি থেকে ১২৭ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১১ হাজার ৮১০ জন, খাগড়াছড়ি থেকে ১০১ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১৩ হাজার ৪৭০ জন এবং বান্দরবান থেকে ৫৫ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ৬ হাজার ৩৮০ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়।

এসআর/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :