বাণিজ্য মেলায় প্রতিবন্ধীদের জন্য ৫ যন্ত্র

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:০৫ পিএম, ১৯ জানুয়ারি ২০১৯

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় সরকারের প্রকল্প এটুআইয়ের স্টলে স্থান পেয়েছে প্রতিবন্ধীদের জন্য পাঁচটি যন্ত্র। প্রতিবন্ধীদের উন্নয়নে যন্ত্রগুলোর উদ্ভাবন করেছেন এ দেশেরই বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

যন্ত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে কথা বলতে না পারাদের জন্য ‘বাক বন্ধু’, পা ও এক হাত না থাকাদের উপার্জনে ‘সোলার পাওয়ার্ড ট্রাই-সাইকেল’ এবং অন্ধদের জন্য ‘অ্যাক্সেসেবল ডিকশনারি’, ‘স্মার্ট ব্লাইন্ড স্টিক’ ও ‘এক্সেসিবল বুক রিডা‘।

বাণিজ্য মেলার প্রধান ফটক দিয়ে প্রবেশ করে একটু সামনে গেলেই বাম পাশে পাওয়া যাবে এটুআইয়ের স্টল। স্টলের ব্র্যান্ড প্রমোটর আয়েশা সিদ্দিকা রুমকি জাগো নিউজকে জানান, এসব উদ্ভাবনী যন্ত্রের সবগুলোই দেশের ব্যক্তিরাই তৈরি করেছেন। তবে মেলার এ স্টল থেকে এসব যন্ত্র বিক্রি করা না হলেও কিনতে সাহায্য করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত যেসব উদ্ভাবনী প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে এটুআই, সেগুলো কিনতে এ স্টলে অনেকেই ঠিকানা জমা দিয়ে যাচ্ছেন। তাদেরকে পরবর্তী সময়ে এটুআই প্রকল্প থেকে ডেকে পণ্যগুলো টাকার বিনিময়ে দেয়া হবে।

রুমকি জানান, অনেকে অনেক কিছু উদ্ভাবন করেন। আর্থিক সহায়তাসহ বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার জন্য তার বাস্তবায়ন করতে পারেন না। এরকম যে কেউ তার উদ্ভাবনী উদ্যোগগুলো সরকারের এটুআই প্রকল্পের ঠিকানায় (www.ideabank.gov.bd) পাঠাতে পারেন। তার উদ্ভাবনী প্রকল্প বাস্তবায়নে সহায়তা করবে এটুআই।

বাক বন্ধু
বাক বন্ধু ব্যবহার করে কথা বলতে না পারা ব্যক্তিরা তাদের মনের ভাব প্রকাশ করতে পারবেন। যন্ত্রটিতে ছবি ও লেখার ব্যবস্থা রয়েছে। কথা বলতে না পারা ব্যক্তি তার প্রয়োজনে যন্ত্রে থাকা ছবিতে চাপ দিলে কিংবা লেখলে সেটা শব্দ আকারে অন্যরা শুনতে পাবেন। বাক বন্ধু উদ্ভাবন করেছেন কাজী বজলুর রহমান। যন্ত্রটির মূল্য সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা।

2

স্মার্ট ব্লাইন্ড স্টিক
অন্ধ বক্তিদের জন্য তৈরি করা হয়েছে স্মার্ট ব্লাইন্ড স্টিক। তাদের চলার সময় কোনো বাঁধা থাকলে সেটার সংকেত দেবে তার বিহীন হেডফোনের মাধ্যমে। রাস্তার কোথাও যদি উঁচু বা নিচু থাকে তাহলে সেগুলোও সংকেত দিয়ে চোখে দেখতে না পাওয়া ব্যক্তিকে জানিয়ে দেবে এই স্টিক। এটি উদ্ভাবন করেছেন আহসান হাবীব। স্টিকটির মূল্য সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা।

এক্সেসিবল বুক রিডার
অন্ধরা এ যন্ত্রের মাধ্যমে পড়তে পারবেন। এ যন্ত্রে প্রথম থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত বই রয়েছে। এ বইয়ের লেখায় স্পর্শ করলে তা শব্দ আকারে উচ্চারিত এবং তা শুনে শুনে পড়া শিখতে পারবেন তারা। এ যন্ত্রের মাধ্যমে সব ধরনের অডিও বই পড়া যাবে। ভাস্কর ভট্টাচার্য্য ও এটুআই যৌথভাবে এ যন্ত্রের উদ্ভাবন করেন। এর মূল্য সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা।

সোলার পাওয়ার্ড ট্রাই-সাইকল
যাদের পা কিংবা এক হাত নেই এ যন্ত্রটি তাদের জন্য। অটোরিকশা জাতীয় এ যন্ত্রটি ব্যবহার করে তারা জীবিকা নির্বাহ করতে পারবেন। যন্ত্রটি উদ্ভাবন করেছেন ইউনুস সরদার। এর মূল্য ৪০ হাজার টাকা। এ ক্ষেত্রে কেউ যন্ত্রটি কিনে জীবিকা নির্বাহ করতে চাইলে নেসলে অর্থায়ন করছে বলে স্টল থেকে জানানো হয়।

অ্যাক্সেসেবল ডিকশনারি
এটি ব্যবহার করে বাংলা থেকে বাংলা, ইংরেজি এবং ইংরেজি শব্দের ইংরেজি, বাংলা অর্থ জানা যাবে।

পিডি/এএইচ/জেআইএম