ঢাকায় নাটোর উৎসবে মিলনমেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫৩ পিএম, ০১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

স্টেজে চলছে গান, বাজনা, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সামনে শতশত দর্শক, শ্রোতা। পাশেই পরিবার, পরিজন। চেনা মুখদের সঙ্গে নিয়ে স্মৃতিচারণ, গল্প গুজব, আড্ডায় লিপ্ত সবাই।

জীবিকার তাগিদে নাটোর জেলার যেসব মানুষ রাজধানী ঢাকায় বসবাস করেন তাদের নাগরিক ব্যবস্তার মাঝে সবার অংশগ্রহণে হাসি, আনন্দ, বিনোদন খুঁজে নিতেই একদিনের উৎসব। সব মিলিয়ে উৎসবটি এক মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে।

মোহাম্মাদপুরের সরকারি শারীরিক শিক্ষা কলেজ প্রাঙ্গণে নাটোর জেলা সমিতি, ঢাকার আয়োজনে পালিত হচ্ছে এ উৎসব। যার নাম নাটোর উৎসব ২০১৯। এ উৎসবে সার্বিক সহযোগিতায় আছে দেশের শীর্ষস্থানীয় বহুজাতিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান প্রাণ-আরএফএল গ্রুপ।

আয়োজকরা জানান, নাগরিক জীবনের একঘেয়ে আর অবসাদ দূর করতে জীবনের নবপ্রাণের সঞ্চার ঘটাতে প্রতি বছরের মতো এবারও আয়োজন করা হয়েছে এই উৎসব।

উৎসবের আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করছেন আনিসুর রহমান এবং সদস্য সচিব হিসেবে রয়েছে আব্দুস ছামাদ মোল্লা।

নাটোর উৎসবে কী কী আছে জানিয়ে তারা বলেন, পরিবার, বন্ধু-বান্ধব, চেনা মুখ, জেলার মানুষদের সঙ্গে নিয়ে গল্পগুজব, আড্ডা, স্মৃতিচারণ, আপ্যায়ন নিয়ে বর্ণিল আয়োজন হয়েছে। সেইসঙ্গে আছে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, র্যাফেল ড্র, পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান। পাশেই চলছে নতুন সদস্য গ্রহণের কার্যক্রম।

natore

সব মিলিয়ে নাগরিক ক্লান্তি কাটাতে একদিনের উৎসবে মেতেছেন এখানে আগতরা। শিশু-কিশোরদের আলাদা বিনোদনের জন্য রয়েছে শিশু কর্নার। বিনোদনের সঙ্গে আরেকটু বিনোদনের মাত্রা বাড়িয়ে দিতে রয়েছে প্রাণ-আরএফএল বেশ কয়টি স্টল। যার মধ্যে রয়েছে : বেস্টবাই, মিঠাই, টেস্টি ট্রিট, ভিগো, ওয়াকার ফুটওয়ার, ক্লিক ছাড়াও প্রাণপণ্যের বিক্রয় প্রদর্শনী। এ উৎসবে আগতারা ঘুরছেন, খাচ্ছেন আর প্রয়োজনীয় সৌখিন এসব পণ্য সংগ্রহও করতে পারছেন।

উৎসবে রাজধানীর উত্তরা থেকে পরিবারের সদস্য নিয়ে এসেছেন সাদিকুর রহমান। তিনি একজন বেসরকারি চাকরিজীবী। নাটোর জেলার মানুষ হলেও জীবিকার তাগিদে দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় বসবাস করেন তিনি। আয়োজন সম্পর্কে নিজের অনুভূতি জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, অসাধরণ এক আয়োজন। আমরা যারা জীবিকার তাগিদে ঢাকায় বসবাস করি, তারা এ দিনটির জন্য অপেক্ষায় থাকি। এ এক মিলনমেলা। দীর্ঘদিন পর সবার সঙ্গে দেখা হওয়ার এক অনুষ্ঠানের নাম ‘নাটোর উৎসব’। এমন আপন উৎসবে সার্বিক সহযোগিতা করার জন্য দেশের শীর্ষস্থানীয় বহুজাতিক শিল্পপ্রতিষ্ঠান প্রাণ-আরএফএল গ্রুপকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাতে চাই। সবাই স্ত্রী সন্তান, প্রিয়জনদের সঙ্গে এসে অন্য সব পরিচিত মুখদের সঙ্গে মিলন মেলার উৎসবে মেতেছেন।

ধানমন্ডি থেকে স্বামীর সঙ্গে এ উৎসবে এসেছেন গৃহিনী রেবেকা খাতুন। তিনি বলেন, আমার স্বামী ও আমার দুজনেরই জেলা নাটোর। প্রতি বছরই নাটোর জেলা সমিতির আয়োজনে এমন উৎসবমুখর আনন্দের আগ্রহ নিয়ে থাকি। এখানে আসলে সবার সঙ্গে গল্পে আড্ডায় মেতে উঠি। এবারের আয়োজনে প্রাণ আরএফএল’র সহযোগিতা আমাদের সবাইকে কৃতজ্ঞ করেছে। এবারের আয়োজনে শিশুরা যেমন আলাদা আনন্দ পাচ্ছে, তেমনি বড়রাও এক আনন্দঘন আড্ডায় লিপ্ত রয়েছেন। সঙ্গে আছে খাওয়া-দাওয়া, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও।

এএস/জেডএ/পিআর