সুমনের লাইভের ৬ ঘণ্টায় সরে গেল ডাস্টবিন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:১৫ পিএম, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

রাজধানীর সুরিটোলা বিদ্যালয়ের সামনে থাকা ডাস্টবিনের ভেতরে ঢুকে গিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ও আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমনের ফেসবুক লাইভের মাত্র ৬ ঘণ্টার মধ্যে সরিয়ে নেয়া হয়েছে ডাস্টবিনটি।
গতকাল রোববার বিকেলের দিকে ফেসবুকে লাইভে এসে সুমন ডাস্টবিনটি সরিয়ে নেয়ার আহ্বান জানান।

আজ সোমবার বেলা আড়াই দিকে ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন ফের ফেসবুক লাইভে এসে ডাস্টবিন সরানোর জন্য সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে ধন্যবাদ জানান। পাশাপাশি তিনি বলেন, তাৎক্ষণিক এমন পদক্ষেপ নেয়ার কারণে এই স্কুলের শিক্ষার্থীরা আপনার কাছে কৃতজ্ঞ থাকবে।

এর আগে গতকাল ‘স্কুলের বাচ্চাদের বাঁচান, বেঁচে যাবে ভবিষ্যৎ’ এই ক্যাপশনে ফেসবুক লাইভে আসেন। তিন মিনিটের সেই ফেসবুক লাইভ পোস্টটিতে এ পর্যন্ত ৮৪ হাজার লাইক পড়েছে। সেই সঙ্গে কমেন্ট পড়েছে ১০ হাজার আর তার টাইমলাইন থেকে এই পোস্টটি শেয়ার করেছেন ৪২ হাজার জন।

এ বিষয়ে ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমনের সঙ্গে কথা হয় জাগো নিউজের। তিনি বলেন, কোনো স্কুলের ঠিক সামনে এভাবে কোনো ডাস্টবিন থাকতে পারে না। তীব্র দুর্গন্ধের মধ্যে দিয়ে শিক্ষার্থীরা এখানে কীভাবে থাকবে? শিক্ষার্থীদের এমন দুর্ভোগের কথা মাথায় রেখে আমি ডাস্টবিনে নেমে লাইভে এসেছিলাম। যেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টিতে এসে তারা যেন ব্যবস্থা নেন।

ব্যারিস্টার সুমন দুর্গন্ধযুক্ত ডাস্টবিনে নেমে বাচ্চাদের বাঁচানোর আহ্বান জানিয়ে ফেসবুক লাইভে বলেন, ‘আমি যেখানে দাঁড়াইয়া আছি সেইটা একটা ময়লার ডাস্টবিন। সুরিটোলা বিদ্যালয়ের মেইন গেইটে যেখানে প্রায় ১৫শ শিক্ষার্থী পড়াশোনা করে সেখানে এমন দুর্গন্ধযুক্ত ডাস্টবিন থাকতে পারে না। ঠিক ওভার ব্রিজের নিচে স্কুলের সামনে সিটি কর্পোরেশনের ডাস্টবিন কীভাবে থাকে?

 

এ সময় তিনি স্কুলের শিক্ষার্থীদের ডেকে বলেন, তোমাদের এখানে দুর্গন্ধ লাগে না, তোমরা চাওনা এখান থেকে এই ডাস্টবিন অপসারণ হোক। তখন শিক্ষার্থীরাও চিৎকার করে তার সঙ্গে সম্মতি জানায়।

সিটি কর্পোরেশন এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্দেশে ব্যারিস্টার সুমন বলেন, এসব শিক্ষার্থীরাই একদিন শিক্ষামন্ত্রী, মেয়র হবে। এই ডাস্টবিনের দুর্গন্ধের যন্ত্রনা থেকে এসব শিক্ষার্থীদের মুক্তি দিন। কোনো স্কুলের ঠিক সামনে এমন ডাস্টবিন থাকতে পারে না।

এ বিষয় জানতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) দায়িত্বরত অতিরিক্ত প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপক খন্দকার মিল্লাতুল ইসলামের সঙ্গে বারবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায় বলেন, সেখানে যে ডাস্টবিনটি ছিল তা ডিএসসিসির উদ্যোগে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। সেখানে এখন আর কোনো ময়লা আবর্জনা নেই। ওই ব্যক্তি ফেসবুক লাইভ করায় অনেক মানুষ সেই ডাস্টবিন সরিয়ে ফেলতে অনুরোধ করেছেন, যে কারণে শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে ডাস্টবিনটি আমরা সরিয়ে ফেলেছি।

প্রসঙ্গত, হবিগঞ্জের সায়েদুল হক সুমন ২০০৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিবিএ সম্পন্ন করার পর ২০০৯ সালে লন্ডনে চলে যান। সেখানে সিটি ইউনিভার্সিটি থেকে বার অ্যাট ল’ করেন।

ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় সুমন এক রাতে দেখেন নরসিংদীর শিবপুরে রাস্তার প্রায় মধ্যখানে দাঁড়িয়ে রয়েছে পল্লী বিদ্যুতের একটি খুঁটি, এ বিষয়ে ফেসবুক লাইভ করলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই সেটি অপসারণ করে কর্তৃপক্ষ। পাশাপাশি এ ধরনের খুঁটি সরাতে আদালতের দ্বারস্থ হন, এর প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট ঝুঁকিপূর্ণ বৈদ্যুতিক খুঁটি অপসারণের নির্দেশও জারি করেন।

বাবুবাজার ব্রিজটির ওপর বাতি প্রায় ছিলই না, যে জন্য অন্ধকারেই চলাচল করতে হতো যানবাহন এবং লোকজনকে। তাতে অনেক ছিনতাইয়ের পাশাপাশি দুর্ঘটনাও ঘটতো বলে ভাষ্য স্থানীয়দের। সুমন বিষয়টি ফেসবুক লাইভে তুলে ধরলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই বাতি জ্বলে ওঠে এই ব্রিজ।

রাজধানীর কাঁটাবন মোড়ে বালু ও ময়লা-আবর্জনার স্তূপ করে ফুটপাত দখল নিয়ে ফেসবুক লাইভে প্রচার করলে দ্রুতই অপসারণ করা হয়।

এ সব ঘটনার মাধ্যমে সামাজিক নানা অনিয়মের বিরুদ্ধে ফেসবুক লাইভে এসে সম্প্রতি আলোচনায় আসেন ব্যারিস্টার সুমন।

এএস/এনএফ/জেএইচ/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :