প্রথম ধাপে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ১৯ প্রার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০০ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপে প্রাথমিকভাবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ১৯ প্রার্থীকে নির্বাচিত ঘোষণা করেছেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল মঙ্গলবার (১৯ ফেব্রুয়ারি)। পরের দিন বুধবার নিয়ম অনুযায়ী একক প্রার্থীদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় প্রাথমিকভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা।

এ বিষয়ে বুধবার নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সহকারী সচিব মোহাম্মদ আশফাকুর রহমান বলেন, ‘এখন পর্যন্ত (সন্ধ্যা) আমাদের কাছে ১৯ প্রার্থীকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত করার তথ্য পাঠিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। চেয়ারম্যান পদে সাতজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে পাঁচজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাতজন একক প্রার্থী থাকায়, তাদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেছেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা।’

অন্যদিকে পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপেও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২৪ প্রার্থী নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে মনে করছেন ইসির কর্মকর্তারা।

গত মঙ্গলবার এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার বলেছেন, ‘এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রধান বিরোধী দল অংশগ্রহণ করছে না। এতে নির্বাচন জৌলুশ হারাতে বসেছে। উপজেলা নির্বাচন সার্বিকভাবে অংশগ্রহণমূলক হচ্ছে না, এই সত্যকে মেনে নিয়েই নির্বাচন করতে হবে। ধারণা করা যায়, চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রায় প্রত্যেকেই নির্বাচিত হবেন এবং ওই পদে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে না। এটাই বাস্তবতা।’

প্রথম ধাপে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়া উপজেলাগুলো হলো পঞ্চগড়ের বোদা, নীলফামারী সদর, জয়পুরহাট সদর এবং জামালপুরের সদর, সরিষাবাড়ি, মেলান্দহ ও মাদারগঞ্জ।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়া উপজেলাগুলো হলো জামালপুরের সরিষাবাড়ি, মেলান্দহ ও মাদারগঞ্জ; সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া ও শাহজাদপুর।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়া উপজেলাগুলো হলো লালমনিরহাট সদর, সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া ও শাহজাদপুর; নাটোর সদর, রাজশাহীর গোদাগাড়ী এবং জামালপুরের মেলান্দহ ও মাদারগঞ্জ।

ইসির সহকারী সচিব আশফাকুর রহমান জানান, প্রথম ধাপে ৮৬ উপজেলার মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রয়েছেন ১০৭১ জন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ২৮০, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪৮২ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছেন ৩০৯ প্রার্থী।

তিনি আরও জানান, ভোটের পর সবার ফল গেজেট আকারে প্রকাশ করা হবে।

ইসি সূত্র জানায়, দ্বিতীয় ধাপে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পাঁচ বিভাগে ১৬ জেলার ১২৪ উপজেলায় ভোট হবে। এতে চেয়ারম্যান পদে ৪৮৩, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬৭৬ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪৬৭ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন। এদের মধ্যে চেয়ারম্যান ১৩, ভাইস চেয়ারম্যান ৫ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬ জন একক প্রার্থী রয়েছেন। একক প্রার্থীরাই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন।

চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী রয়েছে এমন উপজেলাগুলো হলো বগুড়ার আদমদীঘি, নওগাঁ সদর, পাবনা সদর, মৌলভীবাজার সদর, ফরিদপুর সদর, নোয়াখালীর হাতিয়া, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড, সন্দ্বীপ, রাঙ্গুনিয়া, মীরসরাই ও রাউজান; রাঙ্গামাটির কাপ্তাই ও খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী থাকা উপজেলাগুলো হলো পাবনা সদর, ফরিদপুরের সদর ও বোয়ালমারী, নোয়াখালীর হাতিয়া ও চট্টগ্রামের রাউজান।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী থাকা উপজেলাগুলো হলো পাবনা সদর, সিলেটের কানাইঘাট, ফরিদপুর সদর, নোয়াখালীর হাতিয়া ও চট্টগ্রামের রাউজান।

পঞ্চম উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়ন দাখিলের শেষ সময় ছিল ১৮ ফেব্রুয়ারি, যাচাই বাছাই ২০ ফেব্রুয়ারি, প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি এবং ভোটগ্রহণ হবে ১৮ মার্চ।

পিডি/জেএইচ/পিআর