একুশে চেতনায় শুদ্ধ হও প্রাণ

সায়েম সাবু
সায়েম সাবু সায়েম সাবু , জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৪৫ এএম, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পলাশ-শিমুলের রক্তলাল আজ মিলেছে শহীদ বেদিতে। কৃষ্ণচূড়ার রক্ত লাল আজ যেন আরও গাঢ়। আর সূর্যও লালে লাল। রক্তমাখা বর্ণমালায় অর্ঘ্য দিতেই এত আয়োজন! মায়ের ভাষা রক্ষায় যারা রক্ত ঢেলেছিলেন, জাতি আজ তাদের শ্রদ্ধা জানাতে সাজিয়েছে ফুলেল অর্ঘ্য।

একুশ মানে রক্তস্নাত ভোরের সূর্য। একুশ মানে মাথা নত না করা। একুশ মানেই বাংলা জয়ের প্রথম প্রহর। মা-মাটি-মানুষের আবেগের বিস্ফোরণ।

আরও পড়ুন >> আজ আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

m

২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২ : ১৪৪ ধারা ভঙের প্রশ্নে পুরাতন কলাভবন প্রাঙ্গণে আমতলায় ঐতিহাসিক ছাত্রসভা

আজ মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। যেন অধিকার আদায়ে বাঙালির জীবনে প্রথম সূর্যোদয় এদিন। রক্ত দিয়ে মাতৃভাষার অধিকার ছিনিয়ে নেয়ার দিন ২১ ফেব্রুয়ারি।

একুশের প্রথম প্রহরেই ফুলে ফুলে ভরে ওঠে দেশের শহীদ মিনারগুলোর বেদি। দিনব্যাপী ফুল দিয়ে বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করা হয় জাতির হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সন্তান ভাষাশহীদ সালাম, রফিক, জব্বারদের।

শহীদ দিবসে শোককে শক্তিতে রূপ দিয়ে বাঙালি তার দেশমাতৃকার চেতনাদীপ্ত শপথ নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করে।

m

২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২: পুরাতন কলাভবন প্রাঙ্গণ, ১৪৪ ধারা ভঙ্গের প্রাক্কালে

ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনে কোনোই কার্পণ্য থাকে না এদিন। দল-মত, জাতি-ধর্ম, আবাল-বৃদ্ধা নির্বিশেষে সবাই ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে অধীর আগ্রহে থাকেন এদিন। নগ্নপায়ে ফুলের ডালায় হাত রেখে সবার গলায় একই সুর, ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’।

শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান প্রবাসী বাঙালিরাও। বিশেষ মর্যাদায় দিবসটি পালন করছে বিশ্ববাসীও। কোনো দিবসে শহীদদের প্রতি এভাবে শ্রদ্ধা জানানোর ঘটনা অন্য কোনো জাতিতে মেলে না।

বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা করার দাবি ওঠে দেশভাগের পরপরই। ১৯৪৭ সালের নভেম্বর-ডিসেম্বর ভাষার দাবিতে বিক্ষোভ শুরু হলেও ১৯৪৮ সালের মার্চ মাসে তা আন্দোলনে রূপ নেয়, যা ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারিতে চরমভাবে প্রকাশ ঘটে।

m

২২ ফেব্রুয়ারি ১৯৫২ : ঢাকা মেডিকেল কলেজ প্রাঙ্গণে জানাজা শেষে বিশাল মিছিল

ওইদিন সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা ১৪৪ ধারা অমান্য করে রাজপথে বেরিয়ে এলে পুলিশ তাদের ওপর গুলি চালায়। এতে আবুল বরকত, আবদুল জব্বার, আবদুস সালামসহ বেশ কয়েকজন ছাত্রযুবা হতাহত হন।

ওই ঘটনার প্রতিবাদে ক্ষুব্ধ ঢাকাবাসী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হোস্টেলে সমবেত হন। নানা নির্যাতন সত্ত্বেও ছাত্রদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও প্রতিবাদ জানাতে পরের দিন অর্থাৎ ২২ ফেব্রুয়ারি পুনরায় রাজপথে নেমে আসেন। তারা মেডিকেল কলেজ হোস্টেল প্রাঙ্গণে শহীদদের জন্য অনুষ্ঠিত গায়েবি জানাজায় অংশ নেন।

আরও পড়ুন >> ফেব্রুয়ারির রক্তঝরা পথ বেয়েই বাংলার স্বীকৃতি

m

আবুল বরকতের পরিবার শহীদ মিনারের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করে

ভাষাশহীদদের স্মৃতি অমর করে রাখার জন্য ২৩ ফেব্রুয়ারি রাতের মধ্যেই মেডিকেল কলেজ হোস্টেল প্রাঙ্গণে গড়ে তোলা হয় একটি স্মৃতিস্তম্ভ, যা তৎকালীন সরকার ২৬ ফেব্রুয়ারি গুঁড়িয়ে দেয়।

২১ ফেব্রুয়ারির ওই ঘটনার মধ্য দিয়ে ভাষা আন্দোলন আরও বেগবান হয়, যার ফলশ্রুতিতে ১৯৫৪ সালে প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট জয়লাভ করে এবং ৯ মে অনুষ্ঠিত গণপরিষদের অধিবেশনে বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়।

১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনেস্কোর প্যারিস অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং ২০০০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে দিবসটি জাতিসংঘের সদস্যদেশসমূহে যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে।

m

২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৩ :পুরনো ঢাকা কলেজ প্রাঙ্গণে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণে ইডেন কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রীরা

আদিবাসী জাতিগোষ্ঠীর ভাষা সংরক্ষণের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ইউনেস্কো ২০১৯ সালকে ‘ইন্টারন্যাশনাল ইয়ার অব ইনডিজিনাস ল্যাঙ্গুয়েজেস’ হিসেবে ঘোষণা করেছে। এছাড়া এ বছর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ হয়েছে ‘ইনডিজিনাস ল্যাঙ্গুয়েজেস ম্যাটার ফর ডেভলপমেন্ট, পিস বিল্ডিং অ্যান্ড রিকনসিলিয়েশন’, যা আদিবাসী জনগোষ্ঠীর নিজস্ব ভাষা ও কৃষ্টি সংরক্ষণে একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে।

এএসএস/এমএআর/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :