বঙ্গভবন জামে মসজিদে নিহতদের স্মরণে বিশেষ দোয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৫৬ পিএম, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

পুরান ঢাকার চকবাজার চুড়িহাট্টায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের আত্মার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা এবং আহতদের আশু সুস্থতা কামনা করে বঙ্গভবন জামে মসজিদে আজ বাদ জুমা বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে। দোয়ায় দেশ ও জাতির কল্যাণ ও অব্যাহত অগ্রগতি কামনা করা হয়।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, সংসদ সদস্য রেজোয়ান আহাম্মদ তৌফিক, রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব, প্রেস সচিবসহ বঙ্গভবনের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বিশেষ দোয়া ও মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন।

দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন বঙ্গভবন জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন হাফেজ ক্বারী মো. এনামুল হক।

বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাত পৌনে ১১টার দিকে চকবাজারের চুড়িহাট্টা শাহী মসজিদের পেছনের একটি ভবন থেকে আগুনের সূত্রপাত বলে স্থানীয়রা জানান। পরে তা পাশের ভবনগুলোতে ছড়িয়ে পড়ে।

ঘটনায় ৭০ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিএসসিসি মেয়র সাঈদ খোকন। তবে ঢাকা জেলা প্রশাসন জানিয়েছে ৬৭ জন। এদের মধ্যে ৪৬ জনের মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে। সঙ্গেহ দাফন বাবদ ২০ হাজার করে টাকা দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

রাজধানীর চকবাজারে কেমিক্যালের কারণে আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে বলে প্রাথমিকভাবে মত দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) তদন্ত কমিটি।

আজ শুক্রবার সকালে ডিএসসিসির ১১ সদস্যের দল ঘটনাস্থল পরিদর্শনের এক পর্যায়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় তদন্ত কমিটির অন্যতম সদস্য ও ফায়ার সার্ভিসের পরিচালক লে. কর্নেল এসএম জুলফিকার রহমান এ মত দেন।

তিনি বলেন, ‘ভবনের ভেতরে গ্যাস লাইটার রিফিলের পদার্থ ছিল। এটা নিজেই একটা দাহ্য পদার্থ। এছাড়া আরও অন্যান্য কেমিক্যাল ছিল। প্রত্যেকটা জিনিসই আগুন দ্রুত ছড়িয়ে দিতে সহায়তা করেছে। পারফিউমের বোতলে রিফিল করা হতো এখানে। সেই বোতলগুলো ব্লাস্ট হয়ে বোমের মতো কাজ করেছে।’

তিনি বলেন, ‘অবশ্যই কেমিক্যাল ছিল। যা যা ছিল, সেগুলো এক ধরনের কেমিক্যাল। ক্যামিকেলের জন্যই আগুন নিয়ন্ত্রণে সময় লেগেছে বেশি।’

এইউএ/এসআর/পিআর

টাইমলাইন  

আপনার মতামত লিখুন :