দাম জানতে চাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে দোকানির থাপ্পড়

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪১ পিএম, ২২ মার্চ ২০১৯
দুপুরে ইয়েলো কালেকশনের এই দোকানি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে মারধর করেন। ছবি সংগৃহীত

রাজধানীর গাউছিয়া মার্কেটে কেনাকাটা করতে গিয়ে মারধরের শিকার হয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী। শুক্রবার বেলা আড়াইটার দিকে গাউছিয়ার ইয়েলো কালেকশন নামে এক দোকানের দোকানি মারধর করেন ওই ছাত্রীকে।

ছাত্রীর অভিযোগ, দোকানে পণ্য কেনার সময় দাম জানতে চাওয়ায় দোকানি চড়াও হয়ে একপর্যায়ে গায়ে হাত দেওয়ার চেষ্টা করেন। বাধা দিলে থাপ্পড় মেরে ঘাড় ধরে দোকান থেকে বের করে দেন তিনি।

ঘটনার পর পুলিশ মৌখিক অভিযোগের ভিত্তিতে ওই দোকানের তিন কর্মচারীকে আটক করলেও মূল অভিযুক্ত পলাতক রয়েছেন।

ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী বলেন, ‘শুক্রবার দুপুরে কেনাকাটা করতে বান্ধবীকে নিয়ে গাউছিয়া মার্কেটে যান তিনি। মার্কেটের নিচতলায় ইয়েলো কালেকশন নামে দোকানে গিয়ে অলংকারের দাম জানতে চান। এ নিয়ে এক দোকানির সঙ্গে দরকষাকষি চলছিল। হঠাৎ ক্যাশ কাউন্টারে বসা আরেক কর্মচারী বলেন, এক দাম ১০০ টাকা। নিলে নেন, না কিনলে দোকান থেকে বের হয়ে যান। এমন আচরণের কারণ জানতে চাইতেই ওই ব্যক্তি চিৎকার করে অশ্লীল ভাষায় গালাগালি শুরু করেন ও গায়ে হাত দেওয়ার চেষ্টা করেন। বাধা দিলে চড়থাপ্পড় মেরে ঘাড় ধরে মেয়েটিকে দোকান থেকে বের করে দেন।’

পরে বান্ধবীকে নিয়ে পাশের হকার্স মার্কেটে গেলেও ইয়েলো কালেকশনের কয়েকজন দোকানি তাদের অনুসরণ করতে থাকেন। অন্য দোকানে কেনাকাটা করতে গেলেও বাধা দেন তারা। প্রায় আধাঘণ্টার মতো অবরুদ্ধ অবস্থায় থেকে নিউমার্কেট থানায় যোগাযোগ করে খবর দেন তারা। পরে পুলিশ এসে তাদের মার্কেট থেকে বের করে আনেন।

এ ব্যাপারে নিউমার্কেট থানার ওসি আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘ওই ছাত্রী মৌখিকভাবে আমাদের অভিযোগ করেছেন। এর ভিত্তিতে আমরা সেখানে গিয়ে তাদের মার্কেট থেকে বের করে আনি এবং ইয়েলো কালেকশনের তিন কর্মচারীকে আটক করি। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। ওই ছাত্রী যদি লিখিত অভিযোগ করেন তাহলে আমরা আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করব।’

জেইউ/এসআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]