সাংস্কৃতিক অঙ্গনে মমতাজউদদীন চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবেন : রাষ্ট্রপতি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৫৩ পিএম, ০২ জুন ২০১৯

বিশিষ্ট নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা অধ্যাপক মমতাজউদদীন আহমদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

রোববার (২ জুন) এক শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি বলেন, অধ্যাপক মমতাজউদদীন আহমদের মৃত্যু বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক জগতের জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি। দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে তার অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি নাট্যজন অধ্যাপক মমতাজউদদীন আহমদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন ও তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

স্পিকারের শোক

বিশিষ্ট নাট্যজন অধ্যাপক মমতাজউদদীন আহমদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

এক শোক বাণীতে তিনি বলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত প্রখ্যাত নাট্যকার, নির্দেশক, অভিনেতা ও ভাষাসৈনিক অধ্যাপক মমতাজউদদীন আহমদ নাট্য আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃত ছিলেন। তার মৃত্যুতে বাংলাদেশ এক গুণীজনকে হারালো।

শোক বাণীতে তিনি অধ্যাপক মমতাজউদদীন আহমদের পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন।

পরিকল্পনামন্ত্রীর শোক

প্রখ্যাত নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা অধ্যাপক মমতাজউদ্দীন আহমদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

উল্লেখ্য প্রখ্যাত নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা অধ্যাপক মমতাজউদদীন আজ (রোববার, ২ জুন) বিকেল পৌনে ৪টায় রাজধানীর অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

তার দীর্ঘদিনের সহচর অধ্যাপক রতন সিদ্দিকী জাগো নিউজকে এ খবর নিশ্চিত করে বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরেই মমতাজউদদীন আহমদ শ্বাসকষ্টসহ বার্ধক্যজনিত নানা অসুখে ভুগছিলেন। মাঝে একাধিকবার তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। অবশেষে আজ বিকেল ৩টা ৪৮ মিনিটে অ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।’

এইউএ/এইচএস/পিডি/এমএমজেড/এমআরএম/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :