মাদকের দ্বন্দ্বে হেলপার খুন : তিন বছর পর ধরা ঠান্ডা বাবু

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:০৯ পিএম, ১৭ জুন ২০১৯

রাজধানীর অদূরে টঙ্গী এলাকায় গাড়ির হেলপার লিটন হত্যায় জড়িত একাধিক মাদক ও হত্যা মামলার পলাতক আসামি আমির হোসেন বাবু ওরফে ঠান্ডা বাবুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার মো. রাজিব ফরহানের নেতৃত্বে সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইমের (হোমিসাইডাল ক্রাইম স্কোয়াড) একটি চৌকস দল উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে সোমবার রাজধানীর বনশ্রী থেকে তাকে গ্রেফতার করে।

সিআইডির এএসপি (মিডিয়া) শারমিন জাহান জানান, ২০১৬ সালের ৯ জানুয়ারি গাড়ির হেলপার লিটনকে আমির হোসেন বাবু ওরফে ঠান্ডা বাবু ও তার কয়েকজন সহযোগী মিলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রাস্তায় ফেলে চলে যায়। পরবর্তীতে তাকে টঙ্গী সরকারি হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ওই ঘটনায় লিটনের বাবা মো. মোসলেউদ্দিন বাদী হয়ে টঙ্গী থানায় একটি মামলা করেন। মামলার তদন্তভার সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম (সিরিয়াস ক্রাইম স্কোয়াড) গ্রহণ করে।

শারমিন জাহান আরও জানান, হত্যায় জড়িতদের সম্পর্কে তথ্য মিললেও মূল আসামি আমির হোসেন অত্যন্ত চতুর প্রকৃতির হওয়ায় তাকে গ্রেফতার করা জটিল হয়ে পড়ে। প্রতি দুই মাস পর পর বাসস্থান পরিবর্তন করতো এবং নিজ পরিবারের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ রাখতো না বাবু। সর্বশেষ আজ সকালে উন্নত তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারে ঠান্ডা বাবুকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়।

তদন্তে জানা যায়, মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হত্যাকাণ্ডটি সংঘটিত হয়েছিল। গ্রেফতার ঠান্ডা বাবুর বিরুদ্বে অস্ত্র আইনসহ একাধিক মামলা আছে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

জেইউ/এনডিএস/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :