চট্টগ্রাম জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদ সম্মুখে মুনিরীয়ার মানববন্ধন

মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন
মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন , আমিরাত প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৪:৫০ পিএম, ১৩ জুলাই ২০১৯

তিন মাস ধরে চলা চট্টগ্রাম জেলার রাউজানে নারকীয় সন্ত্রাস, কাগতিয়া মাদরাসার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র বন্ধ এবং ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি অবসানে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি। শুক্রবার (১২ জুলাই) বাদ জুমা জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, কাগতিয়া আলীয়া গাউছুল আজম দরবার শরীফের প্রতিষ্ঠাতা, আওলাদে মোস্তফা, খলিফায়ে রাসূল, হযরত শায়খ ছৈয়্যদ মোহাম্মদ তফাজ্জল আহমদ মুনিরী (রাঃ)।

প্রিয় রাসূল (দঃ)’র শরীয়ত ও তরিক্বতের শিক্ষায় যার জীবন ছিল সাধারণ মানুষের জন্য আদর্শের মানদন্ড। ১৯৪৯ সাল হতে তিনি তরিক্বতের সূফিবাদের মরমী শিক্ষায় মানুষকে উজ্জীবিত করে আসছিলেন। যার ধারাবাহিকতায় ১৯৮৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ‘মুনিরীয়া যুব তবলীগ কমিটি বাংলাদেশ’ নামে একটি অরাজনৈতিক, তরিক্বতভিত্তিক, আধ্যাত্মিক সংগঠন।

এ সংগঠন যুব সমাজকে চরিত্রবান করে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলে বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ করার ক্ষেত্রে অতুলনীয় ভূমিকা পালন করে আসছে। মানববন্ধনে বক্তব্য দেন মুক্তিযোদ্ধা মুহাম্মদ সরোয়ার, মুহাম্মদ হাশেম, মুহাম্মদ আনিস, প্রমুখ।

বক্তারা আরও বলেন, কাগতিয়া দরবার শরীফ এবং কাগতিয়া মাদরাসার অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী, মানবতাবিরোধী অপরাধে দন্ডিত সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ঘনিষ্ঠ সহযোগী, গাড়ির ড্রাইভার এবং স্বাধীনতা পরব র্তী সময়ে সাকার নিজ হাতে প্রতিষ্ঠিত সন্ত্রাসী সংগঠন এনডিপির ফজলে করিম জুনুর নির্দেশে জুলুম নির্যাতনের স্ট্রিম রোলার চালানোর পাশাপাশি নির্যাতনের নতুন নতুন অপকৌশল হিসাবে যোগ হচ্ছে বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠনকে হুমকি দিয়ে কাগতিয়া দরবার শরীফের বিরুদ্ধে বক্তব্য বিবৃতি আদায়ের অপচেষ্টা এবং তাদেরকে মাঠে নামিয়ে আন্দোলন করানোর পায়ঁতারা। অথচ যাদের সাথে কাগতিয়া এশাতুল উলুম কামিল মাদরাসা কিংবা কাগতিয়া দরবার শরীফের পূর্বে বা বর্তমানে কোন ধরনের বিরোধ নেই।

এই সমস্ত বক্তব্য দিতে অপরাগতা প্রকাশ করলে সেই সব ধর্মীয় সংগঠনের নেতাদের কড়া ভাষায় বলে দেয়া হচ্ছে রাউজানে থাকতে গেলে তাদের কথামতো কাগতিয়া দরবারের বিরুদ্ধে বলতে হবে। মানুষের বাকস্বাধীনতা, ব্যক্তিস্বাধীনতা, চলার স্বাধীনতা সব যেন হারিয়ে গেছে রাউজানে। এই তান্ডবলীলার ভয়াবহতা রাউজানে বর্তমানে এমন পর্যায়ে পৌঁছে গেছে মানুষ নিজের বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। কাগতিয়া মাদরাসার বিরুদ্ধে সকল ষড়যন্ত্র বন্ধ করে মাদরাসায় স্বাভাবিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করার সুযোগ চায়।

রাউজানের এমন পরিস্থিতি থেকে সাধারণ মানুষ মুক্তি চায়। স্বাধীনতার সুফল ভোগ করতে চায়, পাকিস্তানি প্রেতাত্মা যাদের ওপর ভর করেছে তাদের থেকে বাঁচতে চায়। প্রশাসনের প্রতি সাধারণ জনগণের একটাই প্রত্যাশা অবিলম্বে রাউজানে ফিরে আসুক স্বাভাবিক পরিস্থিতি।

এমআরএম/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :