ডিসির অশ্লীল ভিডিওতে সয়লাব দেশ, পর্নো সাইট বন্ধে লাভ কী?

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৬ পিএম, ২৭ আগস্ট ২০১৯

তিন-চার দিন ধরে জামালপুর জেলা প্রশাসকের (ডিসি) অশ্লীল ভিডিওতে ভাসছে দেশ। সমাজ আজ বিপন্ন। দেশের প্রায় ৯ কোটি ইন্টারনেট গ্রাহক পাড়ামহল্লার কম্পিউটারের দোকান মেমোরি কার্ডে লোড করে ডিসির এই অপকর্মের ভিডিও দেখছেন।

যেখানে ডিসির অশ্লীল ভিডিওতে দেশ সয়লাব, সেখানে ২২ হাজার পর্নো সাইট বন্ধ করে লাভ কী? এমন প্রশ্ন তুলেছে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশন।

মঙ্গলবার সংগঠনটির সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে তিনি এমন দাবি করেন।

মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, এখন বড় আলোচনার বিষয় জামালপুরের ডিসি। সরকার দেশে ২২ হাজার পর্নো সাইট বন্ধ করলেও এই ভিডিও গত তিন-চারদিনেও সরকার বা নিয়ন্ত্রক সংস্থা বন্ধের কোনো উদ্যোগ নেয়নি। আমাদের দেশে পর্নোগ্রাফি আইন-২০১২ রয়েছে, যার মাধ্যমে এই কাজে লিপ্ত ব্যক্তির সাত বছরের জেল ও ২ লাখ টাকা জরিমানার বিধান আছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন-২০১৮ তে ১ কোটি টাকা জরিমানা ও ১৪ বছরের জেলের বিধান থাকলেও জেলা প্রশাসক ও তার সহকর্মীকে এ আইনের আওতায় কেন গ্রেফতার করা হচ্ছে না, তা জাতি জানতে চায়।

তিনি আরও বলেন, সেই সঙ্গে যারা এই অশ্লীল ছবি প্রসার ও প্রচার ঘটিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে একই শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। সাম্প্রতিক সময়ে বিটিআরসি হাইকোর্টে প্রতিবেদন দিয়েছে যে, দেশের তিনটি অপারেটর ফেসবুক, ইউটিউব এবং গুগলে তিন বছরে দিয়েছে ৩ হাজার কোটি টাকা। অর্থাৎ দৈনিক প্রায় ১০ কোটি টাকার মতো ব্যয় করছে অপারেটরগুলো। এত টাকা ব্যয় করা সত্ত্বেও গুগল, ইউটিউব এবং ফেসবুকের সঙ্গে আমাদের কেন এ ধরনের চুক্তি করা হচ্ছে না। সরকারকে দ্রুত এ বিষয়গুলো দেখভালের আহ্বান জানাই। এ অবস্থা চলতে থাকলে আগামী প্রজন্ম ধ্বংস হয়ে যাবে।

এএস/জেএইচ/এমকেএইচ