এসডিজি ট্র্যাকার চালু করেছে সরকার : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৩২ পিএম, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

জাতীয় উন্নয়নের পাশাপাশি এসডিজি মনিটরিংয়ের জন্য তথ্য ভাণ্ডার গড়ে তুলতে সরকার টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) ট্র্যাকার চালু করেছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।

এসডিজি অর্জনে দেশের বেশ কিছু অগ্রগতি থাকলেও চূড়ান্ত লক্ষ্যে পৌঁছাতে সব অংশীজনকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও জাতিসংঘ আবাসিক কো-অডিনেটর কার্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত ‘এসডিজি এবং বাংলাদেশ’ শীষর্ক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

ড. মোমেন বলেন, একটি ভালো সংবাদ যে, আমরা এসডিজি ট্র্যাকার চালু করেছি। এখন আমরা সুনিদিষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ এবং প্রতিটি এসডিজির অগ্রগতি মনিটরিংয়ের জন্য এটি ব্যবহার করতে পারবো।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এসডিজি এবং ভিশন-২০৪১ অর্জনের জন্য ব্যাপক সম্পৃক্ততা এবং সব স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে অংশীদারিত্ব খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি ক্ষেত্রে অগ্রগতি হলেও জলবায়ু পরিবর্তন আমাদের জন্য একটি মারাত্মক হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাংলাদেশ নিজস্ব অর্থায়নে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত সমস্যা মোকাবিলায় কৌশলগত ও কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করেছে।

fm

ড. মোমেন বলেন, জাতিসংঘের ২৩টি বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত জাতিসংঘ কান্ট্রি টিম (ইউএনসিটি) যৌথভাবে সরকারকে এসডিজি অর্জনে সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম শাহরিয়ার আলম, ইউএন আবাসিক কো-অর্ডিনেটর মিয়া সেপ্পো, সদস্য (সিনিয়র সচিব), জেনারেল ইকোনমিক ডিভিশন, ড. শামসুল আলম এবং ইউএনএফপিএর এশিয়া প্যাসিফিকের আঞ্চলিক পরিচালক জন আন্দ্রেসন বক্তব্য রাখেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য আরও বৃহত্তর, দীর্ঘমেয়াদী এবং বৈশ্বিক পুঁজির নিশ্চয়তা ও সহযোগিতা প্রয়োজন হবে।’

শাহরিয়ার আলম বলেন, জাতিসংঘের ব্যবস্থায় যে সব বন্ধুরা আছে তারা আমাদের এ প্রচেষ্টায় তাদের সমর্থন এবং সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে।

জাতিসংঘের সংস্থাগুলোকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সফলভাবে এসডিজি অর্জনের জন্য রাজনৈতিকভাবে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ এবং নৈতিকভাবে সমর্থন করি। সে জন্য সম্পদের সহজলভ্যতা, মানুষের সক্ষমতা ও ক্ষমতায়ন বৃদ্ধি করার জন্য কাজ করছি।’

মিয়া সেপ্পো বৈশ্বিক লক্ষ্য নিয়ে নিউইয়র্কে হতে যাওয়া ৭৪তম জাতিসংঘ সম্মেলনের আগে ঢাকার এ সম্মেলনকে গুরুত্বপূর্ণ সংলাপ হিসাবে উল্লেখ করেন।

জেপি/এএইচ/জেআইএম