তারেক রহমান বড় অজগর সাপ, সব খেয়ে ফেলে : তথ্যমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:১৮ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বড় অজগর সাপ, গিলে সব খেয়ে ফেলে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। রোববার সচিবালয়ে বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারের তালিকাভুক্ত শিল্পীদের সংগঠন ‘বাংলাদেশ টেলিভিশন-বেতার শিল্পী সংস্থা’র নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের শুরুতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

ক্যাসিনোতে অভিযানের বিষয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর করেছেন, কেঁচো খুড়তে সাপ বেরিয়ে আসছে। এ বিষয়ে মন্তব্য জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ওনাদের (বিএনপি) যে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান উনি তো বড় অজগর সাপ, সব গিলে খেয়ে ফেলেন।’

তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন, এটির জন্য তো বিএনপির বরং সরকারকে সাধুবাদ জানানো দরকার। যেখানে মাদক কিংবা ক্যাসিনো বা যেখানে অনিয়ম হচ্ছে সেখানে ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন সেক্ষেত্রে কে কোন মতের বা কোন পথের সেটি দেখা হচ্ছে না। যেটি বিএনপি আমলে করা হয়নি।’

‘বিএনপির আমলে তারা বরং দুর্নীতিকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছিল। হওয়া ভবন বানিয়ে প্রত্যেক ব্যবসায় ১০ পারসেন্ট কমিশন বসানো হয়েছিল। খোয়াব ভবন বানিয়ে আমোদ-ফূর্তি করা হতো। সেই জায়গায় প্রধানমন্ত্রী এখন এসব অনিয়ম ও মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নিয়ে অগ্রসর হচ্ছেন। এতে তো বিএনপির খুশি হওয়ার কথা, সাধুবাদ দেয়ার কথা, তাদের ব্যর্থতার জন্য লজ্জা পাওয়ার কথা।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবকে প্রশ্ন করব- নিজের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হচ্ছেন বড় অজগর সাপ, যেটি গিলে সব খেয়ে ফেলে। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে সেই জায়গায় রেখে আর বাংলাদেশকে পর পর পাঁচবার দুর্নীতি চ্যাম্পিয়ন বানিয়েছিলেন, তাদের তো এনিয়ে কথা বলার নৈতিক অধিকার নেই।’

আওয়ামী লীগে শুদ্ধি অভিযান কবে থেকে- জানতে চাইলে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যেখানে অনিয়ম পাওয়া যাচ্ছে সেখানেই ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আমরা পর পর তৃতীয়বার রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকার কারণে অনেক অনুপ্রবেশকারী আমাদের সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ে ঢুকেছে। তাদেরকে চিহ্নিত করার কাজ চলছে, ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

যাদের ধরা হচ্ছে, তাদেরও গডফাদার আছে- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘যাদেরকে ধরা হচ্ছে কোনোটাই কেঁচো নয়। কোনোটাই চুনোপুঁটি নয়।’

যাদের ধরা হচ্ছে তারা আমলা, মন্ত্রীসহ সরকারের উচ্চ পর্যায়ে কমিশন দিয়ে এসব করে যাচ্ছিলেন, এতে সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে কিনা, প্রশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা- জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তারা (গ্রেফতারকৃতরা) যে কথা বলেছে, আমি পত্রপত্রিকায় দু’এক জায়গায় দেখেছি। এই কথাগুলো স্টিল নট ভ্যালিডেটেড, অবশ্যই তাদের সাথে যাদের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা হবে।’

এসময় সম্প্রতি ভারত সফরের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন তথ্যমন্ত্রী।

আরএমএম/এসএইচএস/এমএস