ব্যস্ত রাস্তায় প্রতিবন্ধী, পার করে দিলেন ট্রাফিক কনস্টেবল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৩৩ পিএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ট্রাফিক সিগন্যাল ছিল না তখন। দ্রুতগতিতে একটি বাস ছুটে আসছে। ডান হাত উঁচিয়ে গাড়ি থামানোর চেষ্টা করছেন। একটু ঝুঁকে বাম হাতে এক শারীরিক প্রতিবন্ধীকে এগিয়ে যাওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন এক ব্যক্তি।

রোববার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৪টা ৫০ মিনিটের দিকে রাজধানীর মহাখালীর আমতলী চার রাস্তার ট্রাফিক মোড়ের এই ব্যক্তি একজন ট্রাফিক কনস্টেবল। নাম মো. গিয়াস উদ্দিন। তার থামার ইশারা পেয়ে মহাখালী রেললাইন ক্রস করে আসা বাড্ডাগামী দ্রুতগতির ওই বাসটি ব্রেক করে।

অন্যদিকে বনানীর দিক থেকে আসা বাড্ডাগামী আরেকটি বাস তখন ব্রেক করেছে। এর মাঝে দুই পা হারানো ওই শারীরিক প্রতিবন্ধীকে রাস্তা পারাপারের চেষ্টা করে চলছিলেন ট্রাফিক কনস্টেবল গিয়াস উদ্দিন।

ব্রেক করলেও পাশ দিয়ে বাড্ডাগামী বাস দুটি চলতে থাকল। রাস্তার মাঝামাঝি পর্যায়ে যখন গিয়াস উদ্দিন ও ওই প্রতিবন্ধী, তখন তাদের মাঝে রেখে দুই পাশ দিয়ে বাস দুটি চলে যায়। বাসের আড়ালে ঢাকা পড়েন তারা।

রাস্তা পারাপারের শুরুতেই বড় ধরনের ঝুঁকিতে পড়তে হয় এই ট্রাফিক কনস্টেবল ও শারীরিক প্রতিবন্ধীকে। রাস্তা পারাপার হতে লাগা চার থেকে পাঁচ মিনিটের বাকি সময়ে ঝুঁকি থাকলেও শুরুর মতো ঝুঁকিতে পড়তে হয়নি তাদের। পারাপারের পুরো সময় ধরেই শারীরিক প্রতিবন্ধী এই ব্যক্তির একপাশে থেকে সাহায্য করেছেন দায়িত্বরত ট্রাফিক কনস্টেবল গিয়াস উদ্দিন।

দুই পা হারানো ওই ব্যক্তি জামালপুর থেকে বাসে ঢাকায় এসেছেন। বাস তাকে সেখানে নামিয়ে দেয়। এরপর রাস্তা পারাপার হতে তিনি সাহায্য নেন গিয়াস উদ্দিনের।

নাম না জানিয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধী জাগো নিউজকে জানান, তিনি আরবি শিক্ষায় শিক্ষিত। পা না থাকায় তিনি ঢাকায় এসেছেন ভিক্ষা করতে। রাজধানীতে কেউ পরিচিত নেই। রাতে বাসস্ট্যান্ডেই থাকবেন।

ট্রাফিক কনস্টেবল গিয়াস উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘দেখলাম, এই লোক রাস্তায় পড়ে আছে। পার হতে পারছে না। কারও সাহায্য ছাড়া তার পক্ষে রাস্তা পারাপার হওয়াও সম্ভব নয়। তাই তাকে পারাপার হতে সাহায্য করেছি মাত্র।’

পিডি/বিএ/এমএস