ফতুল্লায় জেএমবির দুই সদস্য গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:২৯ পিএম, ১৩ অক্টোবর ২০১৯

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির দুই সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

শনিবার (১২ অক্টোবর) রাতে অভিযান চালিয়ে র‌্যাব-১১ এর একটি দল তাদের আটক করে। গ্রেফতাররা হলেন- মেহেদী হাসান ওরফে মুরাদ (২৪) ও আমানউল্লাহ (৩৩)। তাদের কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ উগ্রবাদী বই, লিফলেট ও ল্যাপটপ জব্দ করা হয়।

র‌্যাব-১১ মিডিয়া অফিসার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আলেপ উদ্দিন বলেন, চলতি বছর র‌্যাব-১১ বেশ কয়েকটি সফল জঙ্গিবিরোধী অভিযান চালিয়েছে। এসব অভিযানে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ১১৬ সদস্য ও পলাতক আসামিদের গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার জঙ্গিদের আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের নেটওয়ার্ক এবং কার্যক্রমের অনেক তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। প্রাপ্ত তথ্যাদি যাচাই-বাছাই ও বিশ্লেষণের পর জঙ্গি কার্যক্রমে সম্পৃক্ত যে সব সদস্য এখনও গ্রেফতার হয়নি তাদের আইনের আওতায় আনতে নজরদারি ও অভিযান চলছে।

জিজ্ঞাসাবাদ ও অনুসন্ধানে জানা যায়, মেহেদী হাসানের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানায়। সে ২০১০ সালে স্থানীয় স্কুল থেকে এসএসসি ও ২০১২ সালে নারায়ণগঞ্জের একটি কলেজ থেকে এইচএসসি এবং ২০১৬ সালে ঢাকার বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয় হতে বিএসসি (টেক্সটাইল) সম্পন্ন করে।

jmb1

২০১৪ সালে কথিত এক বড় ভাইয়ের মাধ্যমে সে জেএমবিতে যোগ দেয়। তার মাধ্যমেই অপর গ্রেফতার আমানউল্লাহ জেএমবিতে যোগ দেয়।

আমানউল্লাহর বাড়ি পিরোজপুর জেলার কাউখালী থানায়। সে বরিশালের একটি স্থানীয় মাদরাসা হতে কামিল পর্যন্ত পড়াশুনা করে নারায়ণগঞ্জের একটি মাদরাসায় শিক্ষকতা করতো। চাকরির পাশাপাশি সে জেএমবির দাওয়াতি শাখার কার্যক্রম পরিচালনা করত। মাদরাসায় তার কক্ষটি আলাদা থাকায় সেখানে জেএমবি সদস্যদেরকে নিয়ে গোপন বৈঠক করতো।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানায়, জেএমবির কার্যক্রম পরিচালনা, আইন শৃংখলা বাহিনীর উপর হামলা ও আটককৃত জেএমবি সদস্যদের মুক্ত করার পরিকল্পনা এবং সংগঠনের তহবিল সংগ্রহ করে বিভিন্ন নাশকতামূলক কর্মকাণ্ডের অপতৎপরতা চালিয়ে আসছিল।

জেইউ/এএইচ/এমএস