মশক নিধন কার্যক্রমে ধীরগতির কথা স্বীকার করলেন মেয়র

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:০৮ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০১৯

চলমান মশক নিধন কার্যক্রম বর্তমানে কিছুটা ধীরগতি বলে স্বীকার করে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন বলেছেন, মশক নিধন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য পাঁচ বছর মেয়াদী একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছি। এই প্রকল্পটি অনুমোদনের পর আমরা পাঁচ বছর মেয়াদী কাজ করব। শহরে ডেঙ্গু কমে গেছে কিন্তু দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এখনও ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব কিছুটা রয়ে গেছে।

তিনি বলেন, শীতে কিউলেক্স মশার প্রাদুর্ভাব বেড়ে যায় সেই কিউলেক্স মশা প্রতিহতের জন্য সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। চলমান যে মশক নিধন কার্যক্রম সেটা কিছুটা ধীরগতি হয়েছে। এই ধীরগতি কাটিয়ে খুব দ্রুততম সময়ের মধ্যে কার্যক্রম আরও জোরদার করব।

রোববার ডিএসসিসি নগরভবন প্রাঙ্গণে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ‘বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস-২০১৯’ উদযাপন এক র‍্যালিতে তিনি একথা বলেন।

sayed-2

একজন কাউন্সিলরের অপসারণ বিষয়ে মেয়র বলেন, অপসারণের চিঠি পাওয়ার পর পরই আমরা আইন অনুযায়ী পার্শ্ববর্তী ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে সেই ওয়ার্ডের দায়িত্ব দিয়ে কার্যক্রম প্রাথমিকভাবে পরিচালনা করব। নবনিযুক্ত কাউন্সিলরসহ আমাদের প্রায় শতাধিক কাউন্সিলর রয়েছে। এ শতাধিক কাউন্সিলরের মধ্যে দু-চারজন ক্যাসিনো কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িত বলে পত্রপত্রিকার মাধ্যমে জানতে পেরেছি।

তিনি আরও বলেন, একজন নির্বাচিত মেয়র হিসেবে বলতে চাই, আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। কারও বিরুদ্ধে যদি অভিযোগ আসে তাহলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে করবে। সিটি কর্পোরেশন এ ব্যাপারে তাদের সহযোগিতা করবে। তবে যারা জড়িত নয়, তাদের যাচাই-বাছাই না করে যেন ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হয় এ বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সহযোগিতা করব।

এ সময় র‍্যালিতে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রি. জে. ডা. শরীফ আহমেদ, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন, প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক আব্দুল মান্নান, প্রকল্পের ম্যানেজার সোহেল ইকবাল প্রমুখ।

এএস/জেএইচ/পিআর