বকশিশ চেয়ে ধরা সোহরাওয়ার্দীর দুই ওয়ার্ডবয়

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:২০ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০১৯

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রোগীর আত্মীয় ভেবে দুদক কর্মকর্তাদের কাছে বকশিশ চেয়ে হাতেনাতে ধরা খেয়েছেন দুই ওয়ার্ডবয়।

হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারে দায়িত্বরত কর্মচারীদের বিরুদ্ধে রোগীদের কাছ থেকে বকশিশের নামে অর্থ গ্রহণ করার অভিযোগের প্রেক্ষিতে রোববার দুদক প্রধান কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক নারগিস সুলতানার নেতৃত্বে অভিযান পরিচালিত হয়।

দুদক টিম নাক, কান ও গলা ইউনিটের অপারেশন থিয়েটারের সামনে গেলে রোগীদের স্বজনরা অভিযোগ করেন যে, অপারেশন থিয়েটার থেকে রোগী বের করার সময় ওয়ার্ডবয়সহ অন্যরা কমপক্ষে ৫০০ টাকা বকশিশ দাবি করেন।

অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে দুদক টিম ছদ্মবেশে অবস্থান নেয়। পরে একজন রোগী অপারেশন থিয়েটার থেকে বের হলে ফারুক হোসেন নামের এক ওয়ার্ডবয় রোগীর আত্মীয় ভেবে দুদক কর্মকর্তার কাছে বকশিশ দাবি করেন।

আরেকটি ওয়ার্ডে রোগীর কাছে বকশিশ চাওয়ার সময় ওয়ার্ডবয় লেবু মিয়া দুদক টিমের কাছে ধরা পড়েন। টিম এ দুজনকে হাসপাতাল পরিচালক অধ্যাপক ডা. উত্তম কুমার বড়ুয়ার কাছে সোপর্দ করলে তিনি তাৎক্ষণিকভাবে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা শুরু করেন।

তিনি এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং এ ধরনের অভিযোগসহ অন্য যেকোনো অভিযোগে দুদক টিমকে সর্বাত্মক সহায়তার আশ্বাস দেন। এতে উপস্থিত জনসাধারণ দুদকের এ অভিযানে সন্তোষ প্রকাশ করে।

এদিকে দুদক অভিযোগ কেন্দ্রে (হটলাইন ১০৬) আগত অভিযোগের প্রেক্ষিতে সারাদেশে আজ আরও তিনটি এনফোর্সমেন্ট অভিযান পরিচালিত হয়।

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলা ভূমি অফিসে জাল পর্চা প্রদানপূর্বক অতিরিক্ত খাজনা আদায়ের অভিযোগে সিলেট জেলা কার্যালয়, কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজে অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায় এবং মসজিদ নির্মাণে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে কুষ্টিয়া জেলা কার্যালয় অভিযান পরিচালনা করে।

এমইউ/বিএ/এমএস