সরকারের সমালোচনা নয়, সহযোগিতা করুন : ডেপুটি স্পিকার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:২৩ পিএম, ০৬ নভেম্বর ২০১৯

সুশীল সমাজ, এনজিও ও সমাজকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া বলেছেন, শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠা ও শিশুদের কল্যাণে সত্যিকারের কিছু করতে চাইলে মিডিয়ায় বা সভা-সেমিনারে শুধু সরকারের সমালোচনা না করে সরকারকে সহযোগিতা করুন।

বুধবার সংসদ ভবনে আইপিডি কনফারেন্স কক্ষে শিশু অধিকার বিষয়ক সংসদীয় ককাসের সাথে অ্যাকশন ফর সোশ্যাল ডেভেলপমেন্টের (এএসডি) ‘শিশু সুরক্ষায় আমাদের করণীয়’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ডেপুটি স্পিকার বলেন, শিশু ও নারী নির্যাতন, যৌন নিপীড়ন ও যৌন হয়রানি শুধু আইন করে প্রতিরোধ করা সম্ভব নয়। এজন্য প্রয়োজন সামাজিক সচেতনতা ও দায়বদ্ধতা। সমাজের সব স্তরে মানুষের মাঝে শিশু ও নারী নির্যাতন আইনের বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। বাংলাদেশে বিদ্যমান আইনটি যথেষ্ট কার্যকরী। শিশু নির্যাতনকারীর কোনোভাবেই ছাড় পাওয়ার সুযোগ নেই এই আইনে। অপরাধীকে আইনের আওতায় এনে সরকার সাথে সাথে তাদের বিচারকাজ কার্যকর করছে।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলই নারী ও শিশুদের জন্য সুবর্ণ সময়। এ সরকারের সময় যদি আমরা নারী ও শিশুদের সুরক্ষা দিতে না পারি তাহলে তাদের সুরক্ষা দেয়া আর কখনো সম্ভবপর নয়। এ সময় তিনি নারী ও শিশুদের কল্যাণে গৃহীত সরকারের নানামুখী পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।

আয়োজক সংস্থার দৃষ্টি আকর্ষণ করে ডেপুটি স্পিকার বলেন, এ ধরনের সভা, সমাবেশ, সেমিনার শুধু আপনাদের রুটিনওয়ার্কের অংশ হলেই হবে না। যদি সত্যিকার অর্থে শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠার অভিপ্রায়ে এ সভার আয়োজন করে থাকেন, তাহলে জনসাধারণকে আইন মানার জন্য তাদের মধ্যে সচেতনতা গড়ে তুলতেও কাজ করতে হবে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি ও শিশু অধিকার বিষয়ক সংসদীয় ককাসের সভাপতি শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল, আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী, শামীম হায়দার পাটোয়ারী, মো. রেজাউল করিম বাবলু, আবুল কালাম আজাদ,উম্মে ফাতেমা নাজমা, অপরাজিতা হক, রাবেয়া আলীম, রওশন আরা মান্নান, সৈয়দা শামসুন্নাহার, সৈয়দা রুবিনা আক্তার,অ্যারমা দত্ত, আবিদা আজিম প্রমুখ।

এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আয়োজক সংগঠনের নির্বাহী পরিচালক জামিল এইচ চৌধুরী এবং মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ইউকেএম ফারহানা সুলতানা।

এইচএস/এমএসএইচ/এমএস