গোলাপ ফুলের রেইনকোট!

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১২:৫৩ পিএম, ১০ নভেম্বর ২০১৯

 

‘অ্যারে ব্যাটা, ফুলগুলান বৃষ্টিতে ভিইজ্যা নষ্ট অইবো। তাড়াতাড়ি রেইনকোট দিয়ে ঢেকে দে।’ এ কথা বলেই প্লাস্টিকের পলিথিনের দিকে ইশারা করলেন রাজধানীর শাহবাগে গোলাপ ফুলের এক ব্যবসায়ী। যে ছোট্ট ছেলেটিকে উদ্দেশ্যে করে এ কথা বলছিলেন, সে ছেলেটি কথার অর্থ বুঝতে না পেরে ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে ছিল।

rose-3.jpg

এবার ফুল ব্যবসায়ী হেসে বলেন, ‘বৃষ্টি আইলে মানুষ যেন ভিইজ্যা না যায়, হের লাইগ্যা রেইনকোট ব্যবহার করে। আর বৃষ্টির পানিতে যাতে গোলাপ ফুলগুলা ইষ্ট না হয়, তাই পর্দা দিয়া ডাইক্যা রাখতে কইছি।’ এবার ছোট্ট ছেলেটি দ্রুত পলিথিন দিয়ে গোলাপ ফুলগুলো ঢেকে দেয়।

rose-3.jpg

এ দৃশ্যপট রোববার সকাল ৭টায় শাহবাগ ফুলের আড়তের। শাহবাগের এ ফুলের আড়তটিতে ভোরের আলো ফোটার আগেই সাভারসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে গোলাপ, রজনীগন্ধা, জিপসি, রঙ্গণ, জারবেরাসহ বিভিন্ন ফুলের গাড়ি এসে থামে। তাদের কাছ থেকে শাহবাগে পাইকারি ব্যবসায়ীরা ফুল কিনে পসরা সাজিয়ে বসেন। ভোর সাড়ে ৬টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার খুচরা দোকানদাররা এ বাজার থেকে ফুল কিনে নিয়ে যান।

rose-3.jpg

কিন্তু আজ ভোরে সরেজমিনে ফুলের আড়তের ভিন্ন চিত্র দেখা যায়। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে আজ কাকডাকা ভোর থেকে রাজধানীতে বৃষ্টি হচ্ছিল। এ কারলে আড়তে ফুলের ক্রেতা কম। যারা আসছেন তারাও ফুল নিয়ে দরদাম করছেন। বেশিরভাগ দোকানের ফুল সাদা প্লাস্টিক দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে। ক্রেতা আসলে প্লাস্টিক সরিয়ে ফুল বের করে দেখানো হচ্ছে। তবে অধিকাংশ ক্রেতার সঙ্গে দামে বনিবনা না হওয়ায় ফুল বিক্রি কম।

rose-3.jpg

সাদেক হোসেন নামের এক ফুল ব্যবসায়ী বলেন, বর্তমানে প্রতি ১০০ গোলাপ ফুল ৩০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। আজ বৃষ্টির কারণে প্রতি ১০০ গোলাপ ২০০ টাকার বেশি দাম বলছে না কেউ। এ কারণে ফুল ছাড়ছেন না। গোলাপ ফুলগুলো যত্ন করে রাখলে ৩-৪ দিন সতেজ থাকে। তাই আজ ফুল বিক্রি করছেন না তিনি। বেলা বাড়লেও বৃষ্টির কারণে ফুল বিক্রি অন্যান্য দিনের চেয়ে অনেক কম বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

এমইউ/জেডএ/এমএস