মাটির ওপর ট্রেন চালাতে পারি না, মেট্রো চালাব কীভাবে

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৫১ এএম, ১৫ নভেম্বর ২০১৯
ফাইল ছবি

একের পর এক রেল দুর্ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করে সংসদের বিরোধী দলের নেতা রওশন এরশাদ বলেছেন, আমরা তো মাটির ওপর ট্রেন ঠিকমতো চলাতে পারছি না। তাহলে মেট্রোরেল কীভাবে চালানো হবে? শূন্যের ওপর দিয়ে মেট্রোরেল হচ্ছে। এই ট্রেন যে পড়ে যাবে না, তার নিশ্চয়তা কী?

সেখানে আরও বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা প্রকাশ করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার রাতে একাদশ জাতীয় সংসদের পঞ্চম অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে তিনি নিরাপদ খাদ্য, আলোচিত বিভিন্ন হত্যাকাণ্ডের বিচার, মাদকের ভয়াবহতাসহ বিভিন্ন সামাজিক অবক্ষয়ের কথা তুলে ধরেন।

বিরোধী দলের নেতা বলেন, বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার, সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি, কুমিল্লার সোহাগী জাহান তনু, পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আকতারের স্ত্রী মাহমুদা আকতারসহ এ পর্যন্ত যত হত্যাকাণ্ড ঘটেছে, সবগুলোর দ্রুতবিচার সম্পন্ন করে মানুষের মধ্যে আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে। কিছু হত্যাকাণ্ডের বিচার দ্রুত হয়। আবার কিছু হত্যাকাণ্ডের বিচার হচ্ছে না। নুসরাত হত্যার বিচার দ্রুত সম্পন্ন করা হলেও সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি হত্যার বিচার এখনও শুরুই হয়নি। কিছু মামলা ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। যেগুলো সরকার চায় সেগুলো দ্রুতবিচার হয়। আর সরকার যেগুলো চায় না সেগুলো ঝুলিয়ে রাখা হয়। এসব মামলা দ্রুতবিচার কাজ সম্পন্ন করার জন্য আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও আইনমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

চলমান ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান প্রসঙ্গে রওশন এরশাদ বলেন, যখন ঢাকা ও চট্টগ্রামে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরু হয় তখন কিছু ক্লাব ও বাড়িতে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র, নগদ টাকা পাওয়া গেছে। এই অভিযানে প্রধানমন্ত্রী নিজের দলের নেতাদেরও ছাড় দেননি। এসব ক্লাবে ক্যাসিনোর খবর স্থানীয় থানাগুলো কেন দেখেনি? আমি আশা করব শুদ্ধ অভিযান অব্যাহত থাকবে।

প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধির বিষয়ে বিরোধী দলের নেতা বলেন, তারা মানুষ গড়ার কারিগর। তাদের উপযুক্ত বেতন-ভাতা দিয়ে যোগ্য মানুষ গড়ার বিষয়টি গুরুত্ব-সহকারে বিবেচনা করার জন্য তিনি সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানান।

রোহিঙ্গা নিয়ে বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যু অনেক দিনের। এখনও সমাধান হয়নি। কবে কে জানে এটার সমাধান হবে। তাদের যত তাড়াতাড়ি পাঠানো যায় ততই মঙ্গল।

এইচএস/বিএ