দুবাই প্রবাসীদের ভোটার তৈরির কার্যক্রম শুরু হচ্ছে সোমবার

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫১ পিএম, ১৭ নভেম্বর ২০১৯

দুবাই প্রবাসীদের ভোটার তৈরির কার্যক্রম শুরু হচ্ছে আগামীকাল সোমবার (১৮ নভেম্বর) থেকে। মাসব্যাপী চলবে এ কার্যক্রম।

এর আগে মালেশিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোটার তৈরির কার্যক্রম শুরু করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গত ৫ নভেম্বর অনলাইনে মালয়েশিয়া প্রবাসীদের ভোটার তৈরির কার্যক্রম উদ্বোধন করে ইসি।

জানা গেছে, ইসির কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে একটি টিম দুবাইয়ে বাংলাদেশ দূতাবাসে ডেস্ক বসিয়ে ভোটার তৈরির কাজ করবেন। পাশাপাশি অনলাইনেও আবেদন নেয়া হবে। দুবাইয়ের পর সৌদি আরব, মালদ্বীপ, সিঙ্গাপুর ও যুক্তরাজ্যে বসবাসরতরাও সুযোগটি পাবেন।

এ বিষয়ে ইসির যুগ্ম সচিব ও জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের পরিচালক (অপারেশনস) আবদুল বাতেন জানান, সোমবার দুবাইতে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন হচ্ছে। ইতিমধ্যে আইডিয়া প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলাম এবং ইসির উপ-সচিব ইকবাল হোসেন সেখানে গেছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন এ কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন। তারপর থেকে এটি চলবে প্রায় এক মাস বা শেষ না হওয়া পর্যন্ত। ইতিমধ্যে দুবাইয়ে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের এ সুযোগ নেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে।

প্রবাসীদের ভোটার হতে শুরুতে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এ আবেদন করতে হবে। আবেদন বৈধ বিবেচিত হলে ইসি কর্মকর্তারা সংশ্লিষ্ট দেশে গিয়ে আবেদনকারীদের ভোটার করবেন।

প্রবাসীরা services.nidw.gov.bd ওয়েবসাইটে ভোটার নিবন্ধনের আবেদন করতে পারবেন। ওয়েবসাইটের আবেদনের পর সেগুলো কেন্দ্রীয়ভাবে যাচাই করা হবে। যাচাই–বাছাই শেষে ইসির কর্মকর্তারা সংশ্লিষ্ট দেশে গিয়ে যোগ্য ও সঠিক আবেদনকারীদের ছবি তোলাসহ ফিঙ্গার প্রিন্ট ও চোখের মনির ছাপ (আইরিশ) গ্রহণ করবে।

জানা গেছে, ইতিমধ্যে ভোটার তালিকা বিধিমালায় প্রয়োজনীয় সংশোধনী আনা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, বিদেশে বসবাসরতরা সেই দেশে ইসির স্থাপিত নিবন্ধন কেন্দ্রে গিয়ে কিংবা অনলাইনে ভোটার হওয়ার আবেদন করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে তিনি সর্বশেষ যে এলাকায় বসবাস করেছেন বা নিজের অথবা বাবার বাড়ির ঠিকানায় ভোটার হওয়ার জন্য আবেদন করতে হবে। পরবর্তীতে তার আবেদন সেই এলাকার উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার মাধ্যমে তদন্তের পর দশ আঙুলের ছাপ, চোখের আইরিশের প্রতিচ্ছবি ও ভোটারের ছবি তুলে এনআইডি সরবরাহ করা হবে। এর আগে রেজিস্ট্রেশন কেন্দ্রে ও ইসির ওয়েবসাইটে দাবি-আপত্তির জন্য তালিকা দেয়া হবে। এ সময়ের মধ্যে কোনো ভুল থাকলে তা সংশোধন করা যাবে।

ইসি জানিয়েছে- মোট ছয়টি ডকুমেন্ট দিতে হবে প্রবাসসীদের ভোটার হওয়ার জন্য। এগুলো হলো- পাসপোর্টের ফটোকপি, বিদেশি পাসপোর্টধারী হলে দ্বৈত নাগরিকত্ব সনদের ফটোকপি বা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতিপত্র, বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে শনাক্তকারী একজন প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকের পাসপোর্টের কপি, বাংলাদেশে বসবাসকারী রক্তের সম্পর্কের কোনো আত্মীয়ের নাম, মোবাইল নম্বর ও এনআইডি নম্বরসহ অঙ্গীকারনামা, বাংলাদেশে কোথাও ভোটার হয়নি মর্মে লিখিত অঙ্গীকারনামা ও সংশ্লিষ্ট দূতাবাসের প্রত্যয়নপত্র।

জনশক্তি, কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর (বিএমইটি) তথ্য অনুযায়ী, ১৯৭৬ থেকে ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১ কোটি ২৬ লাখ ৬৯ হাজার ৩৮৯ বাংলাদেশি কাজের জন্য বিদেশে গেছেন। বেশিরভাগ প্রবাসী বাংলাদেশির গন্তব্য সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ওমান, মালয়েশিয়া, কাতার, সিঙ্গাপুর, কুয়েত ও বাহরাইন।

এইচএস/এএইচ/জেআইএম